বিস্তারিত

শিমুলিয়া নৌরুটে লকডাউনে যাত্রী পারাপার বন্ধ

ছবি : সংগ্রহকৃত

লকডাউনের আওতা বহির্ভুত সব ধরনের যানবাহন ও যাত্রী পারাপার বন্ধ করে দিয়েছে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ফেরিঘাট কর্তৃপক্ষ। বুধবার (১৪ এপ্রিল) সকাল ৬টা থেকেই এ বিষয়ে কড়াকড়ি আরোপ করেছে বিআইডব্লিউটিএ ও পুলিশ।

বুধবার সকাল থেকেই ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেস ওয়েতে চেক পোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। জরুরি প্রয়োজনীয় গাড়ি এবং লকডাউন আওতার বাইরে রয়েছে, এমন যানবাহন ছাড়া সকাল ৬টার পর থেকে কোনো যানবাহন চলতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে শিমুলিয়া ঘাটে দুই শতাধিক এবং বাংলাবাজার ঘাটে চার শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক আটকা পড়েছে।

শিমুলিয়া-বাংলাবাজারের ফেরি বহরের ১৬ ফেরির মধ্য চলমান রয়েছে সচল ১৪টি ফেরি। নৌরুটটিতে লঞ্চ, স্পিডবোট ও ট্রলার চলাচল পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আটকেপড়া পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করার পর ফেরি বন্ধ করে দেয়া হবে।

জেলা পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন বলেন, ‘জেলায় প্রবেশের সব কয়টি স্থানে চেকপোস্ট এবং জেলার গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেক পোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। মাঠে রয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত, ফেরিঘাটে যান প্রবেশের কোনো সুযোগ রাখা হয়নি।’

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক বলেন, ‘সর্বাত্মক লকডাউন পুরোপুরি কার্যকর হচ্ছে, কোনো ছাড় দেয়া হবে না।’

সংবাদের ধরন : বাংলাদেশ নিউজ : নিউজ ডেস্ক