বিস্তারিত

বিটিআরসি ডিটিএইচ নীতিতে পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছে

ছবি : সংগ্রহকৃত

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) গ্রাহকের সাশ্রয়ের কথা বিবেচনা করে ডিরেক্ট টু হোম (ডিটিএইচ) সেবা নির্দেশিকা নীতির পুনর্মূল্যায়ন করার উদ্যোগ নিয়েছে। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ডিটিএইচ নির্দেশিকার অনুমোদন দেয় বিটিআরসি। ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে বেক্সিমকো কমিউনিকেশন লিমিটেড এবং বায়ার্স মিডিয়া লিমিটেডকে ডিটিএইচ লাইসেন্স দিয়েছিল গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। তবে এখনো কোনো কোম্পানি তাদের কার্যক্রম শুরু করতে পারেনি। খুব শিগগির ডিটিএইচ সেবা চালু করতে কাজ চলছে বলে জানিয়েছে কোম্পানিগুলো। কোনো গ্রাহক যদি তার ডিটিএইচ অপারেটর পরিবর্তন করতে চান, তবে গ্রাহক সেবার প্রয়োজনীয় সরঞ্চাম (সিপিই) নতুন অপারেটরের কাছ থেকে কিনে নিতে হবে। সরঞ্চামগুলোর মধ্যে  ক্যাবল, ডিশ অ্যান্টেনা, কন্টেইন সেট-টপ বক্স ইত্যাদি রয়েছে । এতে গ্রাহকের ব্যয় বেড়ে যায়। সেক্ষেত্রে গ্রাহকের সাশ্রয়ের কথা বিবেচনায় নিয়ে ৪ নম্বর ধারার ১-৮ নম্বর উপধারা পরিবর্তনের চিন্তা করছে বিটিআরসি। যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়ে গ্রাহকের চাহিদাকে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দিচ্ছে রেগুলেটরি কমিশন।   বিটিআরসির এক কর্মকর্তা জানান, কন্টেইন সেট-টপ বক্স, ক্যাবল, ডিশ অ্যান্টেনা ইত্যাদি সরঞ্চাম ফেরত দেওয়ার সুযোগ থাকলে গ্রাহকদের সংযোগ পরিবর্তন ব্যয় কম হবে। এটি গ্রাহকের জন্য কিছুটা হলেও স্বস্তির। এর পাশাপাশি সংযোগ পরিবর্তন ও সরঞ্চাম ফেরত নীতির বিষয়ে সম্ভাব্য অন্য সব পরিবর্তনের কথাও বিবেচনা করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, টেলিভিশন চ্যানেল বিতরণের একটি অত্যাধুনিক প্রযুক্তি হলো ডিটিএইচ। এর মাধ্যমে একটি ডিভাইস সংযুক্তির মাধ্যমে ডিজিটাল স্যাটেলাইট সম্প্রচার এবং এইচডি সম্প্রচার দেখতে ও শুনতে পারবেন গ্রাহকরা।

সংবাদের ধরন : বাংলাদেশ নিউজ : নিউজ ডেস্ক