বিস্তারিত

নেহা অমনদীপ জি বাংলা-র জনপ্রিয় নায়িকাদের একজন

ছবি : সংগ্রহকৃত

অমনদীপ সোনকার, যাঁকে বহু দর্শকই নেহা অমনদীপ বলে চেনেন, বাংলা টেলিভিশনের সমসাময়িক সবচেয়ে জনপ্রিয় নায়িকাদের একজন। আসলে নেহা হল নায়িকার ডাকনাম, আর ভালো নাম অমনদীপ। জি বাংলা-র ‘স্ত্রী’ ধারাবাহিক দিয়েই বাংলা টেলিভিশনে পা রাখেন অমনদীপ। সেই সময় মাত্র অষ্টাদশী অমনদীপ বাংলা ভালো বলতে পারতেন না। তাই নির্বাচকরা একটু ধন্দেই পড়েছিলেন। কিন্তু অমনদীপকে নিয়ে অনমনীয় ছিলেন প্রযোজক।

বাংলা টেলিজগতে যে কজন স্টারমেকার রয়েছেন, তাঁদের মধ্যে একজন অবশ্যই ব্লুজ-এর প্রযোজক স্নেহাশিস চক্রবর্তী। তিনি একাধারে প্রযোজক, সঙ্গীত পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার। তাঁর ধারাবাহিক দিয়েই টেলিপর্দায় ডেবিউ করেছেন তৃণা সাহা, স্বস্তিকা দত্ত। বাংলা টেলিভিশনের বহু জনপ্রিয় ধারাবাহিকের নির্মাতা তিনি। ‘স্ত্রী’ ধারাবাহিকের নায়িকা নির্বাচনের সময় নির্বাচকদের অনেকে প্রশ্ন তুলেছিলেন অমনদীপের বাংলা উচ্চারণ নিয়ে। বাংলা ধারাবাহিকের বাঙালি চরিত্রের নায়িকার উচ্চারণে অবাঙালি টান থাকলে তা নিঃসন্দেহে খারাপ। সেই নিয়েই সামান্য সংশয় তৈরি হয়েছিল।

”আমি তো এমনিই অবাঙালি, বাংলা খুব একটা বলতাম না, অ্যাকসেন্টে সমস্যা ছিল একটু। তাই আমাকে নেওয়া হবে কি না, সেই নিয়ে একটা ডাউট ছিল, যেহেতু ওই সময় পরিষ্কার বাংলা কথা বলতে পারতাম না”, বলেন অমনদীপ, ”দাদা (স্নেহাশিস চক্রবর্তী) চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলেন যে না, শি উইল বি দ্য হিরোইন অ্যান্ড শি উইল প্রুভ ইট। দাদা অনেকটা গাইড করেছেন। স্ত্রী-তে আমাদের যিনি পরিচালক ছিলেন, বিজয়দা, তিনিও হেল্প করতেন খুব। তখন থেকেই আমি বাংলাটা ঠিক করতে অনেকটা খেটেছি। বেশি করে বাংলা নিউজপেপার পড়তে শুরু করলাম। স্ত্রী-র পরে যখন ‘ওম নমহ্ শিবায়’ করলাম, ওটা তো মাইথোলজিকাল সিরিয়াল, ওখানে আরও শক্ত বাংলা ডায়ালগ থাকত। ওইটা করার পরে আরও বেটার হয়েছে আমার বাংলা।”

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক