বিস্তারিত

নূরের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে: মামুন

ছবি : সংগ্রহকৃত

ছাত্রলীগের হামলায় আহত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র ও কোটা আন্দোলনের যুগ্ম-আহবায়ক নুরুল হক নুরের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রোববার (০১ জুলাই) সকালে তিনি কয়েকবার রক্তবমি করেছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহবায়ক হাসান আল মামুন।

তিনি বলেন, গতকাল ছাত্রলীগের হামলার পর প্রথমে নূরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নূরকে কোন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে জানতে চাইলে নিরাপত্তার স্বার্থে তা বলতে চাননি মামুন। তবে তিনি বলেন, নূরের শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। তিনি বেশ কয়েকবার রক্তবমি করেছেন। আজ সকাল ৮টায়ও তিনি রক্তবমি করেন।

ছাত্রলীগের মারধরে নূর মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। তার সারা শরীরেই আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এরই মধ্যে নূরের সিটিস্ক্যান করা হয়েছে। এখনও রিপোর্ট হাতে আসেনি। রিপোর্ট পাওয়ার পর তার অবস্থা জানা যাবে।

নূরের চিকিৎসার ব্যাপারে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে তাকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে। তার চিকিৎসার ব্যাপারে যে কোনো ধরনের সহযোগিতা করতে আমরা প্রস্তুত।

প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সংবাদ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। তবে তার আগেই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেখানে অবস্থান নেয়।

সংবাদ সম্মেলনের জন্য কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের একটি দল কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে আসার পর ‘শিবির ধর’, ‘শিবির ধর’ বলে অতর্কিত হামলা চালানো হয়। নুরকে ঘিরে ধরে মারধর করা হয়। একপর্যায় নুর মাটিতে পড়ে গেলে শোয়া অবস্থায় তাকে লাথি মারতে থাকে তারা।

উল্লেখ্য, গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে ছাত্রলীগের হামলায় নুরুল্লাহ নূরসহ সাত শিক্ষার্থী আহত হন।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক