বিস্তারিত

নাটোর ও লালমনিরহাট জেলার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত

ছবি : সংগ্রহকৃত

নাটোর ও লালমনিরহাট জেলার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। এ নিয়ে গত দুই সপ্তাহে ২৩ জেলার শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম স্থগিত করলো উচ্চ আদালত।

মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) লালমনিরহাটের আঞ্জুমান আরাসহ ছয়জন প্রার্থীর রিট শুনানি নিয়ে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মাহমুদ হাসান তালুকদারের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে চার সপ্তাহের জন্য রুল জারি করেছেন আদালত।

আদালতে আঞ্জুমান আরাসহ ছয় প্রার্থীর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. হাসান রাজিব প্রধান, অ্যাডভোকেট মো. মোখলেছুর রহমান বাবু। লালমনিরহাট জেলার চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হওয়া ১১৮ প্রার্থীর মধ্যে ৬৬ জন মহিলা এবং ৫২ জন পুরুষ প্রার্থী রয়েছেন।

এদিকে গতকাল সোমবার (২৭ জানুয়ারি) নাটোরের মুক্তিয়ারা খাতুনের এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মাহমুদ হাসান তালুকদারের দ্বৈত বেঞ্চ ছয় মাসের জন্য নাটোরের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের কার্যক্রম স্থগিত করেন।

আদালতে মুক্তিয়ারা খাতুনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ‘নিয়াজ মোহাম্মদ মাহাবুব’ এবং ‘হুমায়ুন কবির’। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল বিপুল বাগমারা। নাটোর জেলার চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ১৯৪ জন প্রার্থীর মধ্যে ৮৮ জন মহিলা এবং ১০৬ জন পুরুষ প্রার্থী রয়েছেন।

পরে রিটকারীদের আইনজীবী নিয়াজ মোহাম্মদ মাহাবুব জানান, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-২০১৩ লঙ্ঘন করে গত ২৪ ডিসেম্বর ঘোষিত ফলাফল কেন আইনগত কর্তৃত্ববর্হিভূত হিসেবে বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে আদালত রুল জারি করেছেন। একই সঙ্গে আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।’

আইনজীবীরা নিয়াজ মাহাবুব আরও জানান, নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী সহকারী শিক্ষক পদে সরাসরি নিয়োগযোগ্য পদগুলোর ৬০ শতাংশ মহিলা প্রার্থীদের দ্বারা, ২০ শতাংশ পোষ্য প্রার্থীদের দ্বারা এবং বাকি ২০ শতাংশ পুরুষ প্রার্থীদের দ্বারা পূরণ করা হইবে। কিন্তু ফলাফলে এই বিধিমালা অনুসরণ করা হয়নি।

এ নিয়ে গত কয়েকদিনে প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক পদে ২৩ জেলায় ৬ হাজার ৮৮২ জনের নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করলো হাইকোর্ট। এর মধ্যে মহিলা প্রার্থী ৩ হাজার ১৮৮ জন আর পুরুষ প্রার্থী রয়েছেন ৩ হাজার ৬৯৪ জন।

যে ২৩ জেলায় শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়:- লালমনিরহাটের চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ১১৮ প্রার্থীর মধ্যে ৬৬ জন মহিলা এবং ৫২ জন পুরুষ প্রার্থী। নাটোরের ১৯৪ জনের মধ্যে ৮৮ জন মহিলা এবং পুরুষ ১০৬ জন। নীলফামারীর ২৬৬ জনের মধ্যে ১২৮ জন মহিলা এবং পুরুষ ১৩৮ জন। বরগুনার ৪০৩ জনের মধ্যে মহিলা ১৬৮ জন এবং পুরুষ ২৩৫ জন। পটুয়াখালীর ৪১৫ জনের মধ্যে মহিলা ২৩৪ জন এবং পুরুষ ১৮১ জন। মাদারীপুরের ১৫৩ জনের মধ্যে মহিলা ৭৫ জন এবং পুরুষ ৭৮ জন। সিরাজগঞ্জের ৬৯৫ জনের মধ্যে মহিলা ৩৩৮ জন এবং পুরুষ ৩৫৭ জন। নওগাঁর ২৭৮ জনের মধ্যে মহিলা ১১৫ জন এব্ং পুরুষ ১৬৩ জন। ভোলার ৩৪৪ জনের মধ্যে মহিলা ১২৭ জন এবং ২১৭ জন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১২৫ জনের মধ্যে মহিলা ৪২ জন এবং পুরুষ ৮৩ জন। হবিগঞ্জের ২০৪ জনের মধ্যে মহিলা ১০২ জন এবং ১০২ জন পুরুষ। ময়মনসিংহের ৪৫৫ জনের মধ্যে নারী ২০৯ জন এবং পুরুষ ২৪৬ জন। নেত্রকোণার ২৪০ জনের মধ্যে ৯৬ জন নারী এবং পুরুষ ১৪৪ জন। নোয়াখালীর ৫৩৩ জনের মধ্যে নারী ২০৪ জন এবং পুরুষ ৩২৯ জন। যশোরের ৪২৮ জনের মধ্যে নারী ১৬০ জন এবং পুরুষ ২৬৮ জন। সাতক্ষীরার ৭২ জনের মধ্যে নারী ২৭ জন এবং পুরুষ ৪৫ জন। টাঙ্গাইলের ৩৯৭ জনের মধ্যে ২১০ জন নারী এব্ং পুরুষ ১৮৭ জন। ঠাকুরগাঁওয়ের ২২৯ জনের মধ্যে নারী ১১৪ জন এবং ১১৫ জন। নড়াইলের ৯৬ জনের মধ্যে নারী ৩৭ জন এবং পুরুষ ৫৯ জন।কক্সবাজারের ২৮০ জনের মধ্যে নারী ১১৭ জন এবং পুরুষ ১৬৩ জন। ঢাকার ৪১৭ জনের মধ্যে নারী ২৮১ জন এবং পুরুষ ১৫৬ জন। গাজীপুরের ৩০৯ জনের মধ্যে নারী ১৬২ জন এবং পুরুষ ১৪৭ জন। পিরোজপুরের ২৩১ জনের মধ্যে নারী ১০৮ জন এবং পুরুষ ১২৩ জন। মহিলা নাটোরের ১৯৪ জন প্রার্থীর মধ্যে ৮৮ জন নারী এবং পুরুষ প্রার্থী ১০৬ জন রয়েছেন।

 

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক