বিস্তারিত

দিল্লিতে সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪

ছবি : সংগ্রহকৃত

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে দিল্লিতে সংঘর্ষের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ৩৪। জখম হয়েছেন ২২০-রও বেশি মানুষ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শান্তি ফিরিয়ে আনার আবেদন জানান।

জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের উপদ্রুত এলাকা সফরের পরেও বুধবার অগ্নিসংযোগের খবর পাওয়া গিয়েছে ভজনপুরা, মৌজপুর ও কারাওয়াল নগর এলাকাগুলিতে। মৌজপুর, জাফরাবাদের মতো বেশ কয়েকটি এলাকার পরিস্থিতি এখনও থমথমে।

গুরু তেগ বাহাদুর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, ৩০ জনেরই মৃত্যু হয়েছে ওই হাসপাতালে। মৃতদের মধ্যে রয়েছেন এক মহিলাও। ৯ জনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ভর্তি করানো হয়েছিল হাসপাতালে। দু’জনের মৃত্যু হয়েছে এলএনজেপি হাসপাতাল আর এক জনের মৃত্যু হয়েছে জগ পরবেশ চন্দ্র হাসপাতালে। সোমবার সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছিলেন দিল্লি পুলিশের হেড কনস্টেবল রতন লাল।

দিল্লি পুলিশ এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ১৮টি এফআইআর দায়ের করেছে। গ্রেফতার করা হয়েছে ১০৬ জনকে।

গত কাল দুপুরে জাফরাবাদের মেট্রো স্টেশনের নীচের রাস্তা আজ সুনসান। একটু দূরে মৌজপুর চকেও রাস্তা ছিল জনমানুষ শূন্য। শনিবার থেকে জাফরাবাদেই সিএএ-বিরোধীরা রাস্তা অবরোধ করেছিলেন। রবিবার থেকে পাল্টা সিএএ-র পক্ষে জমায়েত শুরু হয়।

জোহরাপুরী-ভজনপুরায় গত কাল নতুন করে দাঙ্গা হয়েছে। উত্তরপ্রদেশ লাগোয়া জোহরাপুরীতে পুলিশের সঙ্গেও দুষ্কৃতীদের সংঘর্ষ হয়েছে। রাতেও ভজনপুরা থেকে আটকে পড়া মানুষের ফোন এসেছে পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবীদের কাছে। গভীর রাতে ব্রহ্মপুরী ও মুস্তাফাবাদ থেকে খবর আসে, ফের অশান্তি শুরু হয়েছে।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক