বিস্তারিত

তাসকিন-সানি’র পাশে তারকারা

ছবি : সংগ্রহকৃত

চলছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ খেলতে এখন ভারতে অবস্থান করছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আর বাংলাদেশ দলের সমর্থনে রয়েছে ১৭ কোটি বাঙালি। তাদের হার জিত বড় কথা নয়, সবাই চান দলটি যেন ভালো খেলে। আর যেদিন থাকে বাংলাদেশের খেলা তাহলে তো কথাই নেই। সব কাজ ফেলে খেলা দেখাই যেন মূখ্য হয়ে যায় সবার। তারকারও এর ব্যতিক্রম নন। তারা তাদের শত ব্যস্ততার মদ্ধ্যে বাংলাদেশের খেলার দিন সমর্থন জানিয়ে যাচ্ছেন। সারা বাঙালি জাতির মতো তারাও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পাশে দাঁড়ান। ভালো খারাপ সময় তাদের সমর্থন দিয়ে যান।

আর এখন তো বাংলাদেশ এমন একটি দল হয়েছে যা সব দলকেই হারাতে সক্ষম এবং তা করিয়েও দেখাচ্ছে তারা। তবে এই ভালো সময়ই যেন বাংলাদেশের কাল হয়ে দাঁড়াচ্ছে। বিশ্বকাপে খেলতে যাওয়া বাংলাদেশ দলকে শুনতে হলো তাদের দুই বোলার তাসকিন আহমেদ এবং আরাফাত সানিকে অবৈধ ঘোষণা করেছেন আইসিসি। আর এতেই যেন ক্ষোভে ফেটে পড়েছে সারা বাঙালি জাতি। তারকারাও প্রকাশ করেছেন তাদের ক্ষোভ। তাদেরকে সমর্থন জানিয়ে সবাই পাশে থাকার প্রত্যয় নিয়ে আইসিসির উপর ক্ষোভ ঝারছেন সবাই। প্রতিবাদ হিসেবে কেউ ফেসবুকে বিভিন্ন ধরণের ভিডিও বের করছেন, কেউ ইভেন্ট তৈরি করেছেন একসঙ্গে মিলিত হয়ে প্রতিবাদ করার জন্য। বাঙালি জাতি প্রমাণ করেই যাচ্ছে তারা কতটা ক্রিকেটপ্রেমী। এই বিষয়ে প্রিয়.কম-এ তাদের বিষয়ে মতামত দিয়েছেন তারকারা।

মোশাররফ করিম
বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির এই সিদ্ধান্ত গ্রহণযোগ্য নয়। সহানুভুতি এবং শুভকামনা রইল টাইগার আরাফাত সানি এবং তাসকিন আহেমদের প্রতি। আশা করছি বাংলাদেশ ক্রিকেটের অভিভাবক হিসেবে বিসিবি আইনসম্মত ভাবে তাদের সর্বোচ্চ করণীয়টাই করবে। হেরে যাওয়ার জাতি আমরা নই সেটা যুদ্ধের ময়দানে হোক আর খেলার মাঠে।

মিজ আর্থ ইন্টারন্যাশনাল প্রিয়তি
দেশ ছেড়ে অনেক বছর আগেই পাড়ি জমিয়েছেন আয়ারল্যান্ড। সেখানে তিনি এখন মিজ আর্থ ইন্টারন্যাশনাল। তবে বাংলাদেশের খেলা হলে কোন ভাবেই মিস করেন না তিনি। আইসিসির এমন ঘটনায় তিনি জানান, বাংলাদেশের বোলারদের বোলিং যদি অবৈধ হয়ে থাকে তাহলে ভারত সহ অন্য সব দেশের বোলারদেরও বোলিং পরীক্ষা করানো উচিৎ। আর সেই সঙ্গে পরীক্ষার কমিটিতে প্রতি দেশের একজন করে প্রতিনিধি থাকা উচিৎ।

সজল
আইসিসির এমন ঘটনায় যেন খুবই অবাক হয়েছেন এই অভিনেতা। বাংলাদেশ দল এখন যে পর্যায়ে রয়েছে যেখানে আমরা সব দলকেই হারাচ্ছি। আর এই সময়ে এসে তাদের এমন ঘটনা খুবই হতাশা জনক। তবে আমরা টাইগারদের পাশে সব সময় আছি এবং থাকবো।

ঈশিকা খান
বাংলাদেশের খেলা থাকলে সবার মতো তিনিও হাজির হয়ে যান মাঠে আর না হলে বসে যান টিভির সামনে। বাংলাদেশের খেলা কোন ভাবেই যেন মিস করা যাবে না। তবে বিশ্বকাপে তাসকিন আহমেদ আর আরাফাত সানি’র অবৈধ বোলিং ঘোষণা করায় খুবই হতাশ তিনি। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জন্য এটি খুবই দুঃখজনক ঘটনা। আইসিসি কেন এমন করলো সেটাই বুজে উঠতে পারছি না। এই বিশ্বকাপ বয়কট করা উচিৎ আমাদের। আর এর বিরুদ্ধে বিসিবির অ্যাকশন নেয়া উচিৎ।

ইমরান
তার কাছে এই বিষয়টি কোন ভাবেই যেন মেনে নেয়ার মতো না। এমন একটা কাজ করেছে আইসিসি যা সবাই বুঝতে পারছে যে এমন করা ঠিক হয় নাই তাদের। তবে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন তিনি। এবং এই ঘটনার জন্য যেন বিসিবি থেকে পদক্ষেপ নেয়া হয় সেই আশাও ব্যক্ত করেছেন তিনি।

মুমতাহিনা চৌধুরী টয়া
সবার মতো টয়াও খুবই বিরক্ত বিষয়টি নিয়ে। তার কাছে এই বিষয়টি মেনে নিতেই যেন খারাপ লাগছে। তার মতে, আজকে বাংলাদেশের বোলিং ভালো হচ্ছে বলে তাদের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে কথা বলছে আইসিসি এবং অবৈধ ঘোষণা করছে। যদি ব্যাটিং অ্যাকশন বলে কিছু থাকতো তাহলে তো তামিম ইকবালের খেলাই বন্ধ হয়ে যেত।

সালমান মুক্তাদির
খেলা খুব একটা দেখা হয় না তার। তবে ক্রিকেট নিয়ে যেন তার আগ্রহের শেষ নেই কারণ শুধু বাংলাদেশ দল। এতোটাই হতাশ হয়েছেন তিনি আইসিসির ঘটনায় যে বলেই ফেললেন, যা একটু খেলা দেখতাম তাও আর দেখবো না। শুধু তাই নয় এই ঘটনার প্রতীকী ভিডিও বের করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন তিনি।

শ্রাবণ্য তৌহিদা

ক্রিকেট খেলা চলার সময় টিভির পর্দায় প্রায় সময় হাজির থাকেন তিনি। কারণ ক্রিকেট বিষয়ক অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করে আসছেন অনেক দিন যাবত। আগে ক্রিকেট নিয়ে না বুঝলেও এখন যেন সেটা নিয়েই আগ্রহ বেশি তার। তাই তো আইসিসির এমন ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছেন তিনি। তার মতে, কোনভাবেই এটি মেনে নেয়া যায় না। আর এই ঘটনা যে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এটি বোঝায় যাচ্ছে।

তৌসিফ মাহবুব
এই সময়ের ব্যস্ত অভিনেতা তিনি। তবে যতই ব্যস্ত থাকুক না কেন বাংলাদেশের খেলা হলে যেন বন্ধ হয়ে যায় তার সব কাজ। বিশ্বকাপের ঘটনায় এতোটাই হতাশ যে মিশু সাব্বির এবং সালমান মুক্তাদিরকে নিয়ে একটি ভিডিও বানিয়ে ফেলেছেন। যেখানে আইসিসি’র এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তাছাড়া তিনি বলেন, আমাদের দেশ ভালো খেলছে বলেই এমনটা করেছে আইসিসি। এইরকম করা তাদের ঠিক হয়নি।

তাসনোভা এলভিন
কাজ যতই থাকুক বাংলাদেশের খেলা মিস করা চলবে না তার। তবে বোলিং অবৈধ ঘোষণায় যেন খুব অবাক হয়েছেন তিনি। তার মতে, আইসিসির সমস্যা কই। যখন কোন দল ভালো খেলে তখনই সেই দেশের কোন না কোন ভুল ধরতেই হবে তাদের। যখন আমরা ভালো খেলছি তখনই এমন ঘটনা ঘটাতে হল তাদের। এটা খুবই দুঃখজনক।

সংবাদের ধরন : খেলা-ধুলা নিউজ : স্টাফ রিপোর্টার