বিস্তারিত

চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ ৫ মে পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

ছবি : সংগ্রহকৃত

দেশে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ ৫ মে পর্যন্ত আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। আজ বুধবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাঠপ্রশাসন সমন্বয় অধিশাখার উপসচিব মো. রেজাউল করিম সাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ২৮ এপ্রিল অর্থাৎ আজ মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে আগামী ৫ মে মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে যে ছয়টি শর্ত যুক্ত করা হয়েছে :

১. স্থল, নৌ ও বিমানযোগে যেকোনো ব্যক্তির ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশে (পণ্য পরিবহণ ব্যতীত) নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। তবে শুধু ভিসার মেয়াদোত্তীর্ণ বাংলাদেশিরা ভারতে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশন বা মিশনের অনুমতি নিয়ে বিশেষ বিবেচনায় দেশে প্রবেশ করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে প্রবেশকারীকে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন পালন করতে হবে।

২. দোকানপাট সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা রাখা যাবে। স্বাস্থ্যবিধির নির্দেশনা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৩. আসন্ন ঈদুল ফিতরের নামাজের বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী কার্যক্রম নিতে হবে।

৪. মধ্যপ্রাচ্য, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও চীন থেকে আগত টিকা নেওয়ার সনদসহ এবং নন-কোভিড-১৯ সনদধারীদের নিজ বাড়িতে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন পালন করতে হবে। এসব দেশ থেকে আগতদের সংশ্লিষ্ট থানায় আগমন ও কোয়ারেন্টিনের বিষয়ে জানাতে হবে।

৫. মধ্যপ্রাচ্য, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও চীন থেকে আগত শুধু নন-কোভিড-১৯ সনদধারীরা সরকার নির্ধারিত কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থায় থাকবেন। তিন থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে চিকিৎসকেরা সম্মতি দিলে নিজের বাড়িতে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকবেন। তবে এ সময় সংশ্লিষ্ট থানায় আগমন ও কোয়ারেন্টিনের বিষয়ে জানাতে হবে।

৬. অন্যান্য দেশ থেকে আগতরা সরকার নির্ধারিত হোটেলে নিজ খরচে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন পালন করবেন।

এর আগে গত সোমবার জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সাংবাদিকদের জানান, বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এবং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে কোভিড-১৯ বিস্তার রোধে চলমান বিধিনিষেধ আরও এক সপ্তাহ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ সময় দোকানপাট ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চালু থাকবে।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক