বিস্তারিত

ইডেন মহিলা কলেজে নেত্রীকে কুপিয়েছে আরেক নেত্রী

ছবি : সংগ্রহকৃত

ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় এক নেত্রীকে কুপিয়ে আহত করেছেন আরেক নেত্রী। হলে বহিরাগত ছাত্রী রাখা নিয়ে শনিবার ভোরে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সময় এই কোপানোর ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হন। ঘটনার পর কলেজ ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা গেছে, কলেজ শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক রুপার রেফারেন্সে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা হলের ২১৯ নম্বর কক্ষে নাবিলা নামে একজন বহিরাগত থাকতেন। তাকে কেন্দ্র করেই হলের ছাত্রলীগের অন্য গ্রুপের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কয়েকজনকে মারধর ও সাবিকুন্নাহার তামান্না নামে একজনের হাতে ছুরি দিয়ে কোপ দেয়ার অভিযোগ ওঠে রুপার বিরুদ্ধে।

অন্যপক্ষ রুপার গ্রুপের কর্মীদের ওপর পাল্টা হামলা করে। বহিরাগত নাবিলাকে লালবাগ থানায় হল প্রশাসনের মাধ্যমে সোপর্দ করা হয়।

ঘটনার পর থেকে ইডেন কলেজ গেটে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ বিষয়ে রুপা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি কোনো সমর্থক তৈরি করিনি যারা কাউকে হামলা করবে বা মারধর করবে। ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক আনজুমানারা অনুর সমর্থকরা বঙ্গমাতা হলে গিয়ে আমার চার-পাঁচ জন কর্মীর উপর হামলা করেছে।’ অন্যদিকে আনজুমানারা অনুর দাবি, তিনি ক্যাম্পাসে ছিলেন না। এমনকি কাউকে মারধরের কথাও অস্বীকার করেন তিনি।

মাহবুবা নাসরিন রূপা ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক। তার বাড়ি ঝিনাইদহ জেলায়। সাবিকুন্নাহার তামান্না ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য, তার বাড়ি বরগুনা জেলায়।

 

সংবাদের ধরন : বাংলাদেশ নিউজ : নিউজ ডেস্ক