বিস্তারিত

আমরাই সিনহাকে প্রধান বিচারপতি বানিয়েছি, সম্মান রাখতে পারেননি

ছবি : সংগ্রহকৃত

আজ বুধবার বিকেলে সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এস কে সিনহাকে মাইনোরিটি থেকে আমরাই তাঁকে প্রধান বিচারপতি বানিয়েছি। তিনি সেটির সম্মান রাখতে পারেননি। এটি নিয়ে আমার কিছু বলার নেই। কিন্তু তাঁর আপিল ডিভিশনের কয়েকজন সহকর্মী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে বলেছেন, তিনি এজলাসে বসলে তাঁরা বসবেন না। সেটি নিয়েই সমস্যা তৈরি। এখানে আমাদের কোনো হস্তক্ষেপ নেই।

এস কে সিনহার বিষয়ে আইনি কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হবে কিনা প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ল উইল টেক ইটস ওন কোর্স (আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে) এর বেশি কিছু বলতে চাই না। বেশি বললে বলেন বেশি কথা বলি। আর কম কথা বললে বলেন কম কথা বলি, এ পর্যন্তই থাক।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা কারো মুখাপেক্ষী হয়ে রাজনীতি করি না। এস কে সিনহা কেন বিএনপি ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বলেছে আমাকে যেন সমর্থন না দেয়, আমি জানি না। আমি কারো সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় আসতে চাই না। আমার সমর্থন জনগণ। সেটি নিয়ে থাকতে চাই। কারো সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় আসতে চাইলে ২০০১ সালে গ্যাস ভারতের কাছে বিক্রি করে ক্ষমতায় আসতে পারতাম। আমাকে সেই প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আমি বলেছি আমার দেশের জনগণের জন্য যদি ৫০ বছরের গ্যাস থাকে তাহলে বিক্রির চিন্তা করব। তাই বলব, আমার যদি কারো সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে হয়, সেই ক্ষমতা আমার দরকার নেই। আর কারো আশীর্বাদ নিয়ে ক্ষমতায় আসার চিন্তা আমার কখনো ছিল না, নেই।

এ সময় আওয়ামী লীগকে পরাজিত করতে বিএনপি শয়তানের সঙ্গেও ঐক্য করবে বলে প্রধানমন্ত্রী মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘বিরোধী দল থাকবেই, একটি দেশে। কিন্তু যারা শয়তানের সান্নিধ্য চায়, শয়তানের সাথে থাকতে চায়, তাদের মানসিকতা কি সেটি জনগণ বুঝে গেছে। তবে মনে হয় দেশের মানুষ চায় না শয়তানের সাথে থাকতে, শয়তানের অধীনে চলতে। সেটি দেশের মানুষ চিন্তা করবে তারা শয়তানের সাথে থাকবে কিনা। থাক এটি নিয়ে আমি কোনো কমেন্ট করতে চাই না। বিকেল সাড়ে ৫টায় সংবাদ সম্মেলন শেষ হয়।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক