বিস্তারিত

সেন্ট পিটার্সবার্গে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস বন্ধ

ছবি : সংগ্রহকৃত

যুক্তরাষ্ট্র থেকে ৬০ রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের জবাবে ৬০ মার্কিন কূটনীতিককে বহিষ্কার করল রাশিয়া। পাশাপাশি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সেন্ট পিটার্সবার্গে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস।

আজ শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে ঐ ৬০ কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণাপত্র দেয় রাশিয়ান সরকার। এদের মধ্যে ৫৮ জন মস্কোর মার্কিন দূতাবাসে কর্মরত কূটনীতিক আর বাকি ২ জন ইয়েক্যাটেরিনবার্গ দূতাবাসে কর্মরত ছিলেন।

আগামী ৫ এপ্রিলের মধ্যে এই ৬০ কূটনীতিককে রাশিয়া ছেড়ে যেতে আদেশ দেওয়া হয়েছে ঐ ঘোষণাপত্রে।

রাশিয়ায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত জন হানটসম্যানের কাছে রুশ পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়ে একটি চিঠিও দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, এর আগে যুক্তরাষ্ট্র থেকে রুশ কূটনীতিক প্রত্যাহারের ঘটনায় ‘পারস্পরিক নীতি’ অনুযায়ী এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে মস্কো।

এদিকে রাশিয়ার এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ওয়াশিংটন। দেশটির স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র হেদার নরেট এক বিবৃতিতে বলেন, রাশিয়ার এই সিদ্ধান্ত প্রমাণ করে যে, তারা সংলাপ চায় না।

রাশিয়ার এই সিদ্ধান্তের কোন বৈধতা নেই। আমরা যুক্তরাজ্যে নার্ভ এজেন্ট হামলার কারণে প্রতিবাদ জানিয়ে পদক্ষেপ নিয়েছিলাম -বলছিলেন নরেট।

রাশিয়ার এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র তার জবাব দেওয়ার অধিকার রাখে বলেও মন্তব্য করেন হেদার নরেট।

প্রসঙ্গত, যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব পাওয়া সাবেক রুশ গুপ্তচর সার্জেই স্ক্রিপাল এবং তার মেয়ে ইউলিয়া স্ক্রিপালের ওপর নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়। গত ৪ মার্চ এই হওয়া এই হামলার জন্য রাশিয়াকেই দায়ী করে আসছে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ।

এই অভিযোগে যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্র থেকে রুশ কূটনীতিক প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। এমন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেই জবাব দিতে রাশিয়া আজ যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিক প্রত্যাহার করল।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক