বিস্তারিত

হাঙরের স্যুপ খেতে ভালোবাসেন দাপুটে শাসক কিম জং উন

ছবি : সংগ্রহকৃত

উত্তর কোরিয়ার দাপুটে শাসক কিম জং উনের অজ্ঞাতবাস কাটিয়ে ফিরলেও বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না। কখনও পরমাণু বিতর্ক, কখনও বা একাধিক স্বৈরাচারী সিদ্ধান্ত- ঘুরে ফিরে খবরেই থেকে গিয়েছেন কোরিয়ার কিম। এমনকী ডামি দাবির জেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফের মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে ‘মৃত্যুশয্যায় কিম’ জল্পনা। আর এরমধ্যেই আলোচনায় কিম জং উনের ডায়েট।

উত্তর কোরিয়ার প্রাক্তন সরকারি শেফ কেঞ্জি ফুজিমোতো’কে উদ্ধৃত করে কিমের ডায়েট সম্পর্কে তথ্য দিয়েছে এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্য়ম। যা অনুযায়ী, দামি ওয়াইন পানের সখ রয়েছে কিমের। এছাড়াও চিজ খেতে খুবই ভালোবাসেন উত্তর কোরিয়ার শাসক। ফুজিমোতোর এক পুরনো সাক্ষাৎকার অনুযায়ী, চমক অন্যত্র! বাচ্চা হাঙরের স্যুপ নাকি খুবই পছন্দ কিম জং উনের এবং প্রায়ই নিজের শেফ-টিমের কাছে ‘স্যুপের আবদার’ও করে থাকেন ৩৬ বছরের রাষ্ট্রনেতা।

প্রসঙ্গত এটা অজানা নয়, অত্যধিক ধূমপান, স্থূলতা-সহ বেশ কিছু সমস্যা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই ভুগছিলেন কিম জং উন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলিতে দাবি, এর জেরেই হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচার এবং তারপর থেকেই গুরুতর অসুস্থ ছিলেন কিম জং উন। যদিও কিমের অস্ত্রোপচার সম্পর্কিত দাবি সত্যি না মিথ্যা, তা নিয়ে কোনও বিবৃতি আসেনি পিয়ংইয়ং থেকে। তবে মার্কিন ওষুধ সংস্থা ‘জন হপকিন্স’-এর তরফে দাবি, কিমের যে ধরনের স্থূলতা রয়েছে, তাতে হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচার স্বাভাবিক।

দীর্ঘ অজ্ঞাতবাসের পর গত ১ মে সব কৌতূহলের অবসান ঘটিয়ে সর্বসমক্ষে আসেন কিম জং উন। রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ের কাছে সানচনে একটি সার কারখানার ফিতে কাটতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক