বিস্তারিত

সংক্রমণ নিয়ে শুরুতেই সতর্ক করা হয়েছিল :বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

ছবি : সংগ্রহকৃত

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বছরের শুরুতেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে সারা বিশ্বেই আপত্‍কালীন পরিস্থিতি জারি করে। চিনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস ধরা পড়ার পর চিনে তো বটেই, চিনের বাইরেও করোনার পরীক্ষা করা হয়েছিল। সেইসময় ১০হাজার জনের পরীক্ষা করা হয়। সংক্রমিত হয়েছিলেন মাত্র ৯৮জন। তখন একটি মৃত্যুও হয়নি।

হু-য়ের ঘোষণার পরও হুঁস ফেরেনি কোনও দেশের। তার ফলস্বরূপ বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে বর্তমানে ৩৩ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। শুক্রবার এমনটাই দাবি করলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিরেক্টর-জেনারেল টেড্রোস আধানম।

সম্প্রতি করোনা মোকাবিলায় চিনের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছে হু, এমন অভিযোগ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোলান্ড ট্রাম্প। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই এদিনের একটি বিবৃতি দেন তিনি। এদিন হু প্রধান দাবি করেন, এই মারণ ভাইরাস মোকাবিলার জন্য রাষ্ট্রনেতাদের সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু সেই সতর্কবার্তা উপেক্ষা করেন অধিকাংশ রাষ্ট্রনেতারাই। আর সেই কারণেই তার ফল ভুগতে হচ্ছে। আর যে সব দেশ হুয়ের সতর্কবার্তা মেনে চলেছে, তারা তুলনামূলক অনেক ভালো জায়গায় রয়েছে।

করোনাভাইরাস সারা বিশ্বে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। বর্তমানে আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্যেও জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বিশেষজ্ঞ দলের পরামর্শ মেনেই সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তাই সারা বিশ্বে জরুরি অবস্থাই জারি থাকবে বলে তিনি ঘোষণা করেছেন।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক