বিস্তারিত

শ্রেয়া ঘোষাল মা হতে চলেছেন

ছবি : সংগ্রহকৃত

ভারতের জনপ্রিয় প্লেব্যাক শিল্পী শ্রেয়া ঘোষালের ভক্তদের জন্য সুখবর! এই সুকণ্ঠী প্রথম বারের মতো মা হতে চলেছেন।

ভারতের বিনোদনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বলিউড বাবলের খবর, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ খবর শেয়ার করেছেন শ্রেয়া ঘোষাল নিজেই। নিজের বেবি বাম্পের একটি ছবি ইনস্টাগ্রামে যুক্ত করে শ্রেয়া লিখেছেন, তিনি ও শিলাদিত্য এই খবর ভাগাভাগি করতে পেরে বেশ রোমাঞ্চিত। জীবনের নতুন অধ্যায় শুরুর আগে তাই ভক্ত-অনুরাগীদের ভালোবাসা ও আশীর্বাদ কামনা করেছেন শ্রেয়া।

২০১৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি বাঙালি ঐতিহ্যিক আয়োজনে শৈশবের বন্ধু শিলাদিত্য মুখোপাধ্যায়কে বিয়ে করেন শ্রেয়া ঘোষাল। বিয়ের আগে প্রায় ১০ বছর প্রেম করেন তাঁরা।

শ্রেয়া ঘোষাল ১৯৮৪ সালের ১২ই মার্চ পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুরে এক বাঙালি ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পূর্বপুরুষেরা বাংলাদেশের বিক্রমপুরের হাসাড়া গ্রামের অধিবাসী। তিনি রাজস্থানের কোটার নিকটবর্তী রাওয়াতভাতা শহরে বেড়ে ওঠেন। তার পিতা বিশ্বজিৎ ঘোষাল ভারতীয় পারমাণবিক শক্তি নিগমের একজন ত্বড়িৎ প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করেন। তার মাতা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর।

হিন্দি চলচ্চিত্রের গানের অন্যতম প্রিয় মুখ শ্রেয়া ঘোষাল। অসংখ্য জনপ্রিয় গান রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। হিন্দি ভাষা ছাড়াও তিনি বাংলা, নেপালি, তামিল, ভোজপুরি, তেলুগু, ওড়িয়া, গুজরাতি, মালয়ালম, মারাঠি, কন্নড়, পাঞ্জাবি ও অসমীয়া ভাষায় গান গেয়েছেন এবং নিজেকে ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তিনি চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, চারবার কেরালা রাজ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার, দুইবার তামিলনাড়ু রাজ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার, সাতবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার, ও দশবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার দক্ষিণ অর্জন করেছেন।

ঘোষাল শৈশব থেকেই নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী হওয়ার ইচ্ছাপোষণ করেন এবং মাত্র চার বছর বয়স থেকেই সঙ্গীতের তালিম নেওয়া শুরু করেন। ছয় বছর বয়সে তিনি শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে তার আনুষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু করেন। ষোল বছর বয়সে তিনি জিটিভির সা রে গা মা পা সঙ্গীত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন এবং বিজয়ী হন। এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে তিনি চলচ্চিত্র নির্মাতা সঞ্জয় লীলা ভন্সালীর মায়ের নজর কাড়েন। এই প্রতিযোগিতা জয়ের পর ২০০২ সালে ভন্সালীর প্রণয়মূলক নাট্যধর্মী দেবদাস চলচ্চিত্রে নেপথ্য কণ্ঠদানের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী হিসেবে তার বলিউডে অভিষেক ঘটে। এ চলচ্চিত্রের গানগুলোতে কণ্ঠ দিয়ে তিনি শ্রেষ্ঠ নারী নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও ফিল্মফেয়ার পুরস্কার, এবং নতুন সঙ্গীত প্রতিভা বিভাগে ফিল্মফেয়ার আরডি বর্মণ পুরস্কারসহ একাধিক পুরস্কার অর্জন করেন।

 

 

 

 

 

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক