বিস্তারিত

শান্তিনগর কাঁচাবাজারে অভিযান, ১লাখ ৪৫ হাজার জরিমানা

ছবি : সংগ্রহকৃত

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর শান্তিনগর কাঁচাবাজারে ক্রেতাদের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালান র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

পয়লা রমজান থেকে গরুর মাংস কেজিপ্রতি ৪৫০ টাকা এবং খাসির মাংস ৭২০ টাকা নির্ধারণ করে দেয় ঢাকা সিটি করপোরেশন। রাজধানীর মাংস ব্যবসায়ীদের সাথে বৈঠক করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তবে ক্রেতাদের অভিযোগ, পয়লা রমজান থেকে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চাইতে বেশি দামে মাংস বিক্রি করছে ব্যবসায়ীরা।

আর ব্যবসায়ী বলছেন, ক্রেতাভেদে মাংসের বিভিন্ন অংশের চাহিদা থাকায় নির্ধারিত মূল্যে মাংস বিক্রি করতে গেলে তাঁরা আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।

এ সময় এক মাংস বিক্রেতা বলেন, ‘হাড়, চর্বিসহ নিলে ৪৫০ টাকা দিতে হবে আর হাড়, চর্বি যদি না নেন তাহলে স্বাভাবিকভাবেই আমাকে এইটার রেট বাড়ায়ে দিতে হবে। তখন দাম হবে ৫০০ টাকা বা ৫২০ টাকা বা ৫৩০ টাকা।’

মাংস কিনতে এসে মাংস বিক্রেতা বলেন, ‘অন্য সময় ৫৫০ টাকা করে নেই আজকে আপনারা আসছেন বলে ৪৫০ টাকা দিছি।’

এই অভিযোগের ভিত্তিতে রাজধানীর শান্তিনগর কাঁচাবাজারে অভিযান চালান র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। সঙ্গে ছিলেন বাজারের ব্যাবসায়ী নেতা ও বিএসটিআইর কর্মকর্তারা। অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ছয় ব্যবসায়ীকে মোট এক লাখ ৪৫ হাজার টাকার আর্থিক জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

র‍্যাবের নির্বাহী হাকিম সারোয়ার আলম বলেন, ‘যদি তাঁরা বলত যে হাড় ছাড়া মাংস আলাদা করে বিক্রি করতে চায় তাহলে আলাদা করে সেটির দাম নির্ধারণ করে দেওয়া যেত। কোথাও কিন্তু হাড় ছাড়া মাংস বিক্রি হয় না। মাংস কিনতে গেলে সেখানে অব্যশই হাড় দিবে। কেউ যদি মনে করে বা চিন্তা করে যে, আসলে আমাদের হাড় ছাড়া মাংসের জন্য আলাদা মূল্য নির্ধারণ করা দরকার তাহলে ভবিষ্যতে অবশ্যই আমরা সেটি দেখব।’

ভ্রাম্যমাণ আদালত বলছেন, যেহেতু মূল্য নির্ধারণের সময় ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত ছিলেন, সে কারণে সেই মূল্যেই ব্যবসায়ীদের মাংস বিক্রি করতে হবে। এবং পুরো রমজান মাস জুড়েই এই ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলবে।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক