বিস্তারিত

লকডাউনের মধ্যেই শুটিং করলেন অক্ষয়

ছবি : সংগ্রহকৃত

করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কা এড়াতে সমস্ত সিনেমা, ডিভি ধারাবাহিক ও ওয়েব সিরিজের শ্যুটিং ১৯ থেকে ৩১ মার্চ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিল ইন্ডিয়ান মোশন পিকচার প্রোডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশন (IMPA)। পোস্ট প্রোডাকশনের কাজও বন্ধ। কিন্তু এই পরিস্থিতির মধ্যেই কিনা শুটিং করলেন অক্ষয় কুমার! যদিও মাস্ক পরে শুটিং করেন তিনি। কিন্তু অনুমতি পেলেন কী করে?

সম্প্রতি একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে নেটদুনিয়ায়। ছবিতে দেখা গিয়েছে মুখে মাস্ক পরে শুটিং করছেন অক্ষয়। তাঁর পরনে সাদা শার্ট, ক্রিম রঙের প্যান্ট আর গলায় লাল গামছা। অক্ষয়ের পাশে ছবিতে দেখা গিয়েছে পরিচালক আর বাল্কিকেও। ক্যানেরা আর টেকনিশিয়ানদের নিয়ে পুরোদমে চলছে শুটিং। একটি বিজ্ঞাপনের জন্য কাজ করছেন তাঁরা। তার শুটিং। লকডাউনের পরবর্তী পর্যায়ে কী কী মেনে চলতে হবে, সেই নিয়েই কেন্দ্রীর সরকার একটি জনস্বার্থমূলক বিজ্ঞাপন বের করতে চলেছে। এটি তারই শুটিং। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের অনুমতি নিয়ে কমলিস্তান স্টুডিওয় শুটিং করেন অক্ষয়। বিজ্ঞাপনের পরিচালক বাল্কি জানিয়েছেন, বিজ্ঞাপনটি স্বাস্থ্যমন্ত্রকের জন্যই তৈরি হচ্ছে। মাস্ক পরে যতটা সম্ভব কম ক্রু নিয়ে চলছে কাজ। লকডাউনের পর মানুষকে আবার কাজে ফিরতে হবে। কিন্তু তখন সামাজিক দূরত্ব, স্যানিটাইজেশন এসব ভুললে চলবে না। বিজ্ঞাপনে সেগুলোই তুলে ধরা হয়েছে।

শোনা যাচ্ছে, জুন মাসের শেষ থেকে বলিউডে শুরু হবে শুটিং। এও শোনা যাচ্ছে FWICE ইতিমধ্যেই সবাইকে মাস্ক এবং স্যানিটাইজার ব্যবহার করার প্রশিক্ষণ দিতে শুরু করেছে। জানা গিয়েছে, প্রতি সেটে একজন করে পরিদর্শক থাকবেন। কে মাস্ক পরেছেন এবং কে পরেননি তা খতিয়ে দেখবেন তিনি। শ্রমিকরা এতে অভ্যস্ত না হওয়া পর্যন্ত পরিদর্শক সেখানে থাকবে। সাধারণত শুটিংয়ের সময় সেটে কমপক্ষে ১০০ বা তার বেশি লোক থাকে।

কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে নির্মাতাদের ইউনিটে ৫০ শতাংশ লোক রাখতে হবে। ৫০ বছরের বেশি যাঁদের বয়স, তাঁদের পরবর্তী তিন মাসের জন্য ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। কারণ অন্যদের তুলনায় তাঁদের করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি এছাড়া শুটিং সেটে সবসময় অ্যাম্বুল্যান্স রাখতে হবে। যাতে জরুরি অবস্থায় সেগুলি ব্যবহার করা যায়। FWICE নতুন নির্দেশিকাগুলি নিয়ে প্রযোজক এবং চ্যানেল প্রধানদের সঙ্গে শীঘ্রই আলোচনা করবে।

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক