বিস্তারিত

‘রোহিঙ্গা’ শব্দ এড়িয়ে গেলেন পোপ ফ্রান্সিস

ছবি : সংগ্রহকৃত

মিয়ানমারের চাপের মুখে পোপ ফ্রান্সিস রোহিঙ্গা শব্দটি এড়িয়ে গেলেও, দেশটির নাগরিকরা অভ্যন্তরীণ সংঘাত ও বৈরিতার শিকার হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। এতে কোরে সমাজে বিভাজন দেখা দিয়েছে উল্লেখ করে, সব জাতিগোষ্ঠীর অধিকার নিশ্চিতের তাগিদ দেন পোপ।

আজ নাইপিদোয় সুচির সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে পোপ ফ্রান্সিস এ তাগিদ দেন। অন্যদিকে পোপ ফ্রান্সিসের সামনে ন্যায়বিচার ও অধিকার রক্ষার বুলি আওড়ালেন সু চি। রাখাইনে স্থিতিশীলতা ফেরাতে তার সরকার সচেষ্ট বলেও দাবি করেন তিনি।

পোপ ফ্রান্সিস বলেন, ‘শান্তি ও জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে মিয়ানমার সরকারকে মানবাধিকার ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকতে হবে। আশা করি ভবিষ্যতে মিয়ানমারের সব জাতিগোষ্ঠী তাদের স্বতন্ত্র পরিচয়ে বসবাসের স্বীকৃতি পাবে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা সুসংহত করার পাশাপাশি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

এদিকে, রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্যাতনের জেরে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চির ‘ফ্রিডম অব অক্সফোর্ড’ সম্মাননা আনুষ্ঠানিকভাবে বাতিল করা হয়েছে। ব্রিটেনের অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিল তার সম্মাননা প্রত্যাহারের পক্ষে সমর্থন জানানোর পর, সোমবার নগর পরিষদে ভোটাভুটিতে সর্বসম্মতিক্রমে তা পাস হয়। এর ফলে স্থায়ীভাবে সু চির সম্মাননা বাতিল করলো অক্সফোর্ড নগর কর্তৃপক্ষ।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক