বিস্তারিত

যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ঘূর্ণিঝড় “লরা”

ছবি : সংগ্রহকৃত

ভয়ঙ্কর ‘হারিকেন লরা’ যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ২৪০ কিলোমিটারের বেশি বাতাসের গতিবেগ নিয়ে ধেয়ে আসছে। ধারণা করা হচ্ছে এই ঘূর্ণিঝড়টি যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাপক তাণ্ডব চালাতে পারে। এতে অনেকের প্রাণহানি হতে পারে এবং এর প্রভাবে তীব্র ঝড় ও বন্যা দেখা দিতে পারে বলেও সতর্ক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার।

ব্রিটিশ সংবাদ বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, যদি এই গতিতে ঘূর্ণিঝড় “লরা” আঘাত হানে তাহলে এটিই হবে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলীয় উপকূলে স্মরণকালের অন্যতম সর্বোচ্চ গতির ঝড়।

জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস এবং লুইজিয়ানা অঙ্গরাজ্যের দিকে ঘণ্টায় ২৪০ কিলোমিটারের বেশি বাতাসের গতিবেগ নিয়ে এগোচ্ছে হারিকেন লরা।

ঘূর্ণিঝড় লরার আঘাত হানার আগেই প্রায় পাঁচ লাখ মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। এর আগে, লরা এবং অন্য একটি ঝড় মার্কোর আঘাতে ক্যারিবীয় অঞ্চলে অন্তত ২৪ জন মারা গেছে। মার্কো এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের লুইজিয়ানায় আঘাত হেনেছে। যদিও মার্কো এরই মধ্যে দুর্বল হয়ে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝড়ে রূপ নিয়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে উপকূলীয় এলাকা থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার কাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। টেক্সাসের গভর্নর গ্রেগ অ্যাবট সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সামর্থ্যবান পরিবারগুলোকে হোটেল এবং মোটেলে আশ্রয় নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক