বিস্তারিত

যুক্তরাষ্ট্রকে ৩য় বিশ্বের দেশ বললেন ট্রাম্প

bd news paper ছবি : সংগ্রহকৃত

bd news,bdnews,bdnews24,bdnews24 bangla,bd news 24,bangla news,bangla,bangla news paper,all bangla newspaper,bangladesh newspapers,all bangla newspaper,bangla news paper,bangladesh newspapers,all bangla newspapers,bd news 24,bangla news today,bd news paper,all bangla news paper,bangladeshi newspaper,all bangla newspaper,all bangla newspapers,bdnews,bangla news,bangla newspaper,bangla news paper,bangla news 24,banglanews,bd news 24,bangla news today,bd news paper,all bangla news paper,bangladeshi newspaper,all bangla newspaper,all bangla newspapers

দুবাই ও চীনের অবকাঠামোগত দিক থেকে তুলনা করলে যুক্তরাষ্ট্র ‘তৃতীয় বিশ্বের দেশে’ পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করে বিতর্কের আগুনে নতুন করে ঘি ঢাললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান মনোনয়নপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প। যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনে রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে নির্বাচিত হলে ৬৯ বছর বয়স্ক এই ধনকুবের অবকাঠামোগত দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ভোল পাল্টানোর আশ্বাস দিয়ে বলেন, ‘আমরা তৃতীয় বিশ্বের দেশে পরিণত হয়েছি। দুবাই বা চীনের মতো জায়গায় আপনারা সড়ক, রেলপথগুলোর দিকে দেখুন, ওদের বুলেট ট্রেন ঘণ্টায় একশ’ মাইল পর্যন্ত যেতে পারে। আর যদি আপনি নিউইয়র্কে যান, সেখানকার অবস্থা একশ’ বছর আগের মতো।’ শুক্রবার উতাহের স্যাল লেক সিটিতে সমর্থকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তার নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্র আইএসকে ঝেটিয়ে বিদায় করবে এবং দেশকে নতুন করে গড়বেন তিনি। আগামী মঙ্গলবার সেখানে নির্বাচন। তার নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্র শুধু নিজ স্বার্থে চুক্তি করবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যখনই ব্যবসার প্রসঙ্গ আসে, তখনই আমরা বুদ্ধিমান হয়ে উঠতে শুরু করি। কারণ আমাদের দেশ গরিব। আমরা আবারও যুক্তরাষ্ট্রকে আগের মতো বড় করে তুলব। এখন সেই দারুণ যুক্তরাষ্ট্র নেই। সেদিকে নজর দেয়া দরকার আমাদের… এটা উন্মুক্ত বাণিজ্যের প্রশ্ন নয়। উন্মুক্ত বাণিজ্য অবশ্যই ভালো। কিন্তু এর সমস্যা হল যে এক্ষেত্রে আমাদের দিক থেকেও কিছু বুদ্ধিমান মানুষ প্রয়োজন।’ এ সময় ট্রান্স-প্যাসিফিক অংশীদারিত্ব চুক্তিকে ‘ধ্বংসাত্মক’ বাণিজ্যিক চুক্তি হিসেবে আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, ‘যদি আমি প্রেসিডেন্ট হই, আমি আপনাকে নিশ্চিত করছি যে, অর্থ দেবে মেক্সিকো নিজেই এবং খুশি হয়েই একাজ করবে তারা।’ তিনি বলেন, ‘আবারও পুরনো সম্পদ ফিরিয়ে আনতে হবে আমাদের। কারণ আমাদের দেশ ভীষণ গরিব। আমাদের এত ঘাটতি রয়েছে, যা আপনারা কল্পনাও করতে পারবেন না। আমরা বুুুদ্বুুদ, যা ভীষণ বিপজ্জনক, ভীষণ কুৎসিত।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : স্টাফ রিপোর্টার