বিস্তারিত

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোধে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে

ছবি : সংগ্রহকৃত

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ভারতের নতুন ভ্যারিয়েন্টের পাশাপাশি ব্ল্যাক ফাঙ্গাসও দেশে চলে এসেছে বলে জানা গেছে। করোনায় ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধের পাশাপাশি এখন ব্ল্যাক ফাঙ্গাসও আমাদের মোকাবিলা করতে হবে। তবে এই মুহূর্তে খুব বেশি ভয়ের কারণ নেই।

এখন পর্যন্ত ভাইরাসটি দেশে ছড়িয়ে পড়েনি। আগাম সতর্কতা হিসেবে দেশের বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানিকে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের প্রতিষেধক ওষুধ উৎপাদন বাড়াতে বলা হয়েছে এবং একই সঙ্গে এই রোগের উপযুক্ত চিকিৎসায় করণীয় কী হবে সে ব্যাপারেও সংশ্লিষ্ট বিভাগকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে আজ মঙ্গলবার শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। পরীক্ষামূলক পর্যায়ে আজ ঢামেকের ১৫৭ জন শিক্ষার্থী টিকা নেবেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতে প্রথম টিকা নেন ঢামেকের পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী অন্যন্যা সালাম সমোতাসহ ছয় শিক্ষার্থী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, মেডিকেল শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে যারা পঞ্চম বর্ষে পড়ছেন প্রথম অবস্থায় তাঁদের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। কারণ, এই মেডিকেল শিক্ষার্থীরা কোভিড রোগীদের সঙ্গে কাজ করছে এবং আগামীতেও করবে। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বিবেচনায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এদের আগে টিকা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে ঢাকা মেডিকেল কলেজের পাশাপাশি দেশের অন্যান্য সরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেওয়া হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, টিকা আমদানিতে চীন, রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। একই সঙ্গে আমেরিকা, যুক্তরাজ্যের সঙ্গেও আলোচনা এগিয়ে গেছে। আশা করা যাচ্ছে, দেশে টিকা প্রাপ্তিতে আগামীতে কোনো সমস্যা থাকবে না।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক