বিস্তারিত

বিয়ে না করেই মা হলেন “কেটি পেরি”

ছবি : সংগ্রহকৃত

মার্কিন পপ গায়িকা “কেটি পেরি” বিয়ে না করেই মা হয়েছেন। ফলে তার বয়ফ্রেন্ড অরল্যান্ডো ব্লুম কন্যাসন্তানের বাবা হয়েছেন। ২৭ আগস্ট পৃথিবীতে এসেছে তার প্রথম সন্তান। কন্যার নাম রাখা হয়েছে ডেইজি ডোভ ব্লুম।

সন্তান জন্মের পরে ইউনিসেফ তাদের এক বিবৃতিতে জানায়, ডেইজি ডোভ ব্লুমকে পৃথিবীতে স্বাগতম। আমদের শুভেচ্ছাদূত কেটি পেরি এবং অরল্যান্ডো ব্লুম দম্পতির নতুন আনন্দের কথা জানাতে পেরে আমরা সম্মানিত বোধ করছি।

এর আগেও চলতি বছরের মার্চের শুরুর দিকে নিজের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন কেটি। ‘নেভার ওর্ন হোয়াইট’ নামের অ্যালবামের ভিডিও প্রকাশ করে খবর দিয়েছিলেন মা হতে চলার। তার পরেই টুইটারে শেয়ার করেছিলেন খুশির খবর।

এর আগে, গত বছর ভ্যালেন্টাইন্স ডে-তে এনগেজমেন্ট সেরেছিলেন কেটি ও অরল্যান্ডো। এ বছরের গ্রীষ্মেই জাপানে ডেস্টিনেশন ওয়েডিংয়ের কথা ছিল তাদের। যদিও করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে সেই দিন পিছিয়ে গেছে। এর মধ্যে বাবা-মাও হলেন এ জুটি।

ক্যাটি এলিজাবেথ হাডসন একজন আমেরিকান সঙ্গীত-শিল্পী, গীতিকার। ক্যালিফোর্নিয়ার সান্টা বারবারা শহরে পেরির জন্ম হয়। শৈশবে তিনি খ্রীস্টান যাজক অভিভাবক দ্বারা পালিত হন। তিনি শৈশবে গোস্পেল সঙ্গীত শুনতেন এবং শিশু হিসেবেই চার্চে গান করতেন। মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে জিইডি পরীক্ষা দেয়ার পর তিনি সঙ্গীতকে পেশা হিসেবে বেছে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। ২০০১ সালে তিনি নিজের নামে প্রথম সঙ্গীত অ্যালবাম প্রকাশ করেন। অ্যালবামটিতে পেরি প্রধানত গোস্পেল ধারার গান করেছেন। পরবর্তিতে ২০০৪ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত তিনি তার দ্বিতীয় অ্যালবাম ও টিম ম্যাট্রিক্সের সাথে একটি মিশ্র অ্যালবামের কাজ করেন, তবে অ্যালবাম দুটি শেষ পর্যন্ত প্রকাশিত হয়নি।

২০০৭ সালে পেরি ক্যাপিটল মিউজিক গ্রুপের সাথে চুক্তি করেন এবং তার নাম পরিবর্তন করে ক্যাটি পেরি রাখেন। এসময় তিনি ইন্টারনেটে তার প্রথম একক সঙ্গীত “ইউ’র সো গে” প্রকাশ করেন। এই গান তাকে কিছুটা খ্যাতি এনে দিলেও গানটি চার্টে অন্তর্ভুক্ত হয়নি। ২০০৮ সালে তিনি সর্বাধিক খ্যাতি অর্জন করেন তার দ্বিতীয় একক সঙ্গীত প্রকাশের মাধ্যমে। গানটির নাম “আই কিসড এ গার্ল”, এটি আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করে এবং বিভিন্ন দেশের টপ চার্টে স্থান করে নেয়।

পেরির প্রথম প্রধান অ্যালবাম ওয়ান অফ দ্য বয়েস একই সালে প্রকাশিত হয়। অ্যালবামটি ঐ বছরের বিশ্বের তেত্রিশতম সর্বোচ্চ বিক্রীত অ্যালাবামে পরিণত হয়। রেকর্ডিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন অফ অ্যামেরিকা অ্যালবামটিকে প্লাটিনাম সনদ দেয়। বিলবোর্ড কর্তৃক প্রকাশিত ২০০০-১০ দশকের সেরা ১০০ শিল্পীর তালিকায় পেরি ৯৭তম স্থান দখল করে। তিনি অদ্ভুত ধরনের পোশাক পরিধানের মাধ্যমে পরিচিতি লাভ করেন। তার পরবর্তি অ্যালবাম টিনএজ ড্রিম ২৪ আগস্ট ২০১০ সালে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় প্রকাশিত হয়। অ্যালবামটি ৩০ আগস্ট বিশ্বব্যাপী প্রকাশিত হয়। বিলবোর্ড ২০০ তালিকায় অ্যালবামটি শীর্ষস্থান দখল করে।

ট্র্যাভিস ম্যাককয়ের সাথে পেরির দীর্ঘদিনের প্রণয়-ঘটিত সম্পর্ক ছিল, তবে বর্তমানে তিনি রাসেল ব্র্যান্ডের সাথে চুক্তিবদ্ধ।

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক