বিস্তারিত

বলিউডের অন্যতম আবেদনময়ী অভিনেত্রী চিত্রাঙ্গদা সিং

ছবি : সংগ্রহকৃত

বলিউডের অন্যতম আবেদনময়ী অভিনেত্রী চিত্রাঙ্গদা সিং। ৪৪ বছর বয়সেও নিজের ফিগার রূপ ধরে রেখেছেন তিনি। হঠাৎ করেই চিত্রাঙ্গদা মেয়েদের গায়ের রং নিয়ে তার অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন।

সম্প্রতি বর্ণবিদ্বেষ শিকার হওয়া নিয়ে মুখ খুলে চিত্রাঙ্গদা জানিয়েছেন, ক্যারিয়ারের শুরু দিকে তার গায়ের রং নিয়ে কথা শুনতে হয়েছে এবং কাজ হাতছাড়া হয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেছেন, এ দেশে গায়ের রং কালো মেয়েদের বেঁচে থাকার দুর্দশা অনুভব করেছেন তিনিও। ভারতের মতো দেশে আজও মেয়েদের গায়ের রং নিয়ে যে বাছাই ও বিচার রয়েছে তা নিয়ে তিনি অবহিত এবং এর তীব্র প্রতিবাদ করেন তিনি। নিজের ত্বক ও চেহারা নিয়ে যে কোনও মানুষের গর্বিত হওয়া উচিত বলেই মনে করেন তিনি।

গায়ের রং কালো হওয়ায় বেশ কয়েকটা মডেলিং অ্যাসাইনমেন্ট থেকে বাদ পড়েছিলাম। একটি বিজ্ঞাপন থেকে বাদ পড়ার পর আমাকে পরোক্ষভাবে বলাই হয়েছিল যে, গায়ের রঙই এর কারণ। সৌভাগ্যবশত সেই বিজ্ঞাপনের কাজটি গুলজার সাহেব দেখেছিলেন। তার পরেই মিউজিক ভিডিওতে কাজের অফার পাই। সেবার বুঝেছিলাম এখানে সবাই ফর্সা মেয়েদের খোঁজে বলেও জানান তিনি।

চিত্রাঙ্গদা সিং ১৯৭৬ সালের ৩০শে আগস্ট তারিখে ভারতের রাজস্থানের যোধপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম কর্নেল নিরঞ্জন সিং চাহাল, যিনি একজন ভারতীয় সেনা কর্মকর্তা। তাঁর বাবার বদলির চাকরির সুবাদে তাঁর পরিবারকে বেশ কয়েক স্থানে বসবাস করতে হয়েছে। মিরাটের সোফিয়া গার্লস স্কুল হতে স্কুল জীবনের পড়াশোনা সম্পন্ন করার পরে, তিনি নতুন দিল্লির লেডি আরউইন কলেজ থেকে হোম সায়েন্স (খাদ্য ও পুষ্টি) বিভাগ হতে স্নাতক শেষ করেছেন।

চিত্রাঙ্গদা সিং রুপালি পর্দায় কাজ শুরু করার পূর্বে একজন মডেল হিসাবে তাঁর কর্মজীবন শুরু করেছিলেন। কলেজের পড়াশোনা শেষ করে তিনি আইসিআইসিআই ব্যাংক এবং আলুক্কাস জুয়েলারির মতো প্রতিষ্ঠানের মডেল হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি আলতাফ রাজার তুম তো ঠহরে পরদেশি নামক অ্যালবামে মডেল হিসেবে কাজ করার মাধ্যমে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। অতঃপর তিনি গুলজারের সংগীত ভিডিও সানসেট পয়েন্টে এ কাজ করার পরে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

২০০৩ সালে সুধীর মিশ্রের চলচ্চিত্র হাজারো খোয়াইশেঁ অ্যায়সি-তে অভিনয় করার মাধ্যমে তিনি চলচ্চিত্র জগতে অভিষেক করেছিলেন; উক্ত চলচ্চিত্রে তাঁর কাজ বেশ প্রশংসিত হয়েছিল। দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের একটি পর্যালোচনামূলক কলামে তাঁর “চরিত্রকে মর্যাদাবোধ এবং শালীনতার গভীর উপলব্ধি” দেওয়ার জন্য প্রশংসা করা হয়েছে। চিত্রাঙ্গদা ২০০৫ সালে কাল: ইয়েস্টারডে এবং টুমোরো নামক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

২০০৫ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি অভিনয় জগতে থেকে বিরতি নিয়েছিলেন। ২০০৮ সালে, তিনি পরিচালক ওনিরের রোমান্টিক-কমেডি চলচ্চিত্র, সরি ভাই!-এ অভিনয় করেছেন; যেখানে তিনি সঞ্জয় সুরির বিপরীতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

চিত্রাঙ্গদা সিং জ্যোতি রণধাওয়া নামক একজন গলফ খেলোয়াড়ের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এবং তাঁর স্বামী ২০১৩ সালে পৃথক হয়ে গিয়েছিলেন এবং ২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এই দম্পতির জোরাবর নামে একটি ছেলে রয়েছে; তাঁর হেফাজত চিত্রাঙ্গদাকে দেওয়া হয়েছে।

 

https://www.facebook.com/2136029833348444/photos/pb.100044217590285.-2207520000../2721167961501292/?type=3

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক