বিস্তারিত

বরিশালে স্বাস্থ্যবিধি অমান্য, ৯ প্রতিষ্ঠান ও ১১ ক্রেতাকে জরিমানা

ছবি : সংগ্রহকৃত

বরিশালে ঈদ কেনাকাটায় করোনা স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করার ৯ টি প্রতিষ্ঠান এবং ১১ জন ক্রেতাকে ৪৮ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। বরিশাল জেলা প্রশাসনের নিয়মিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজও বরিশাল নগরীতে মোবাইল কোর্ট অভিযান অব্যাহত আছে।

শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের ৪টি পৃথক টিম শহরের বিভিন্ন শপিংমল ও বাজারে অভিযান চলায়। নগরীর বাংলাবাজার, চকবাজার, বাজার রোড, কাটপট্টি, ফলপট্টি, গীর্জা মহল্লা ,বটতলা ও পুলিশ লাইন, বাংলাবাজার, সদর রোড বাজার দর মনিটরিং কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

বরিশাল নগরীর কাঠপট্টি, চকবাজার ও গির্জামহল্লা এলাকায় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জিয়াউর রহমান। অভিযানকালে স্ত্রী ও শিশু সন্তানসহ পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে একসঙ্গে কেনাকাটায় আসার মাধ্যমে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি বৃদ্ধি করায় তিনজন ব্যক্তিকে সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনের ২৫(২) ধারায় ২৫০০ টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয় হয়। এছাড়াও চকবাজার এলাকার ৬টি দোকান মালিককে সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি না মানার অপরাধে একই আইনে ২৮ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

অপরদিকে বরিশাল নগরীর সদর রোড, বগুড়া রোড ও বটতলা মোড়ে অবস্থিত পোশাকের দোকানগুলোতে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সাইফুল ইসলাম। অভিযানকালে সদর রোডস্থ ইজি ফ্যাশন এবং বগুড়া রোডে বাংলাদেশ ব্যাংক সংলগ্ন বিটু ফ্যাশন হাউজে স্ত্রী-সন্তানসহ পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে একসঙ্গে কেনাকাটায় আসার মাধ্যমে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুকি তৈরি করার অপরাধে তিনজন ব্যক্তিকে দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ২৬৯ ধারায় মোট ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এদিকে গীর্জামহল্লা ও চকবাজার এলাকায় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মারুফ দস্তেগীর এসময় তিনি সংক্রামক রোগ আইন ২০১৮ অনুযায়ী ৩ টি দোকানকে অতিরিক্ত ক্রেতা সমাগম ও ৪ জন ব্যক্তিকে শিশুসহ কেনাকাটা করার অপরাধে মোট ১৩ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

এ সময় স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে পরিবারের বেশি সংখ্যক সদস্যদের নিয়ে কেনাকাটা করতে আসায় মোট ১১ জন ত্রেতা এবং ৯টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে মোট ৪৮ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমানের নির্দেশে নিরবাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউর রহমান, শরীফ মোহাম্মদ হেলাল উদ্দীন, সাইফুল ইসলাম এবং মারুফ দস্তেগীর পৃথকভাবে উপরোক্ত অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানে আইনশৃংখলা রক্ষায় সহযোগিতা করে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের তিনটি টিম এবং র‍্যাব-৮ বরিশাল এর একটি টিম। ঈদের কেনাকাটায় সামাজিক দূরত্ব রক্ষা এবং স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন নিশ্চিত করতে বরিশাল জেলা প্রশাসনের এই অভিযান চলমান থাকবে বলে জানান কর্তব্যরত এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বৃন্দ।

সংবাদের ধরন : বাংলাদেশ নিউজ : Md Shahzada Hira