বিস্তারিত

প্রচার-প্রচারণা বন্ধ হবে মধ্যরাতে

ছবি : সংগ্রহকৃত

ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) প্রথম ধাপের নির্বাচনী এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়েছে শনিবার মধ্যরাতে; বহাল থাকবে ভোটের পরদিন মধ্যরাত পর্যন্ত। প্রথম ধাপে দেশের ৭২২টি ইউপিতে মঙ্গলবার (২২ মার্চ) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট হবে। এই নির্বাচনের ব্যালট পেপারসহ সব সামগ্রী শুক্রবার জেলা পর্যায়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভোট সামনে রেখে চেয়ারম্যান, সাধারণ ও সংরক্ষিত সদস্য প্রার্থীদের প্রচার বন্ধ হবে রোববার মধ্যরাতে। এরপর থেকে অননুমোদিত যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

জেলা প্রশাসক ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে নির্দেশনা দিতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সড়ক বিভাগের সচিবকে চিঠি দিয়েছে ইসি। সেই সঙ্গে প্রচার বন্ধ ও আচরণবিধি প্রতিপালনের বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে রিটার্নিং অফিসারসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের উপ-সচিব সামসুল আলম গত শুক্রবার জানান, ভোটের দুদিন আগে থেকে (২০ মার্চ) মাঠে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আজ রোববার মধ্যরাত থেকে (সোমবার প্রথম প্রহর) বন্ধ করতে হবে প্রচার। বিধি লঙ্ঘন হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন। বিধি অনুযায়ী,ভোট শুরুর ৩২ ঘণ্টা আগে থেকে সব ধরনের প্রচার,সভা-সমাবেশ ও শোডাউন নিষিদ্ধ। ভোটের পরে ৪৮ ঘণ্টাও কোনো মিছিল করা যাবে না। যানবাহন চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা নিয়ে সড়ক বিভাগে পাঠানো উপ-সচিব মো. সামসুল আলম স্বাক্ষরিত ইসির নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ২১ মার্চ রাত ১২টা থেকে ভোটের দিন মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত বেবিট্যাক্সি, অটোরিকশা, ইজিবাইক, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পো প্রভৃতি যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। ভোটের আগের তিনদিন থেকে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। তবে রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকদের ক্ষেত্রে তা শিথিল থাকবে। নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহে নিয়োজিত দেশি/বিদেশি সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী,আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং চিকিৎসা, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদি কাজে ব্যবহারের জন্য উল্লেখিত যানবাহন চলাচল নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে। জাতীয় মহাসড়ক (হাইওয়ে), বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রয়োজনীয় যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা শিথিল থাকবে। লঞ্চসহ ইঞ্জিনচালিত সব ধরনের নৌযান চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে বলা হয়েছে। তবে ভোটার ও জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম হিসেবে সব নৌযান চলাচলের এবং দূরপাল্লার নৌযান চলাচলের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। ইউপিতে প্রথম ধাপে ২২ মার্চের পর দ্বিতীয় ধাপে ৩১ মার্চ, তৃতীয় ধাপে ২৩ এপ্রিল, চতুর্থ ধাপে ৭ মে, পঞ্চম ধাপে ২৮ মে ও ষষ্ঠ ধাপে ৪ জুন ভোটের তারিখ ঘোষণা করেছে ইসি।

সংবাদের ধরন : বাংলাদেশ নিউজ : স্টাফ রিপোর্টার