বিস্তারিত

পাকিস্তানের আবাসিক এলাকায় ১০৭ আরোহী নিয়ে বিমান বিধ্বস্ত

ছবি : সংগ্রহকৃত

পাকিস্তানের করাচির আবাসিক এলাকায় ১০৭ আরোহী নিয়ে পাক এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে বিপুল প্রাণহানির শঙ্কা করা হচ্ছে। এরই মধ্যে ১৩ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বেশ কিছু বাড়ি মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। দুর্ঘটনাস্থল থেকে ৬ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

উদ্ধারকাজে যোগ দিয়েছে পাক আর্মি কুইক রিয়াকশন ফোর্স এবং পাকিস্তান রেঞ্জার্স। পাক বিমান কর্তৃপক্ষ জানায়, ফ্লাইটটি লাহোর থেকে করাচি যাচ্ছিলো।

স্থানীয় সময় দুপুরে করাচি এয়ারপোর্টে অবতরণের ঠিক এক মিনিট আগে পাশের একটি আবাসিক এলাকায় বিধ্বস্ত হয় এয়ারবাস এ৩২০ মডেলের বিমানটি।

মুহুর্তেই ধোয়ার কুন্ডলিতে ছেয়ে যায় মডেল কলোনির কাছে জিন্নাহ গার্ডেন এলাকা। ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে বেশ কয়েকটি বাড়ি। পুরোপুরি মাটির সঙ্গে মিশে গেছে কয়েকটি গাড়ি।

পাকিস্তান বিমান কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র আবদুল সাত্তার জানান, পিকে৮৩০৩ ফ্লাইটটিতে ৯৯ যাত্রী এবং ৮ ক্রু ছিলেন। যে টি বিমানটি লাহোর থেকে করাচি আসছিলো। এর যাত্রী তালিকায় ছিলেন ব্যাংক অব পাঞ্জাবের প্রেসিডেন্ট জাফর মাসুদ। অবশ্য তিনি জীবিত বলে নিশ্চিত করেছে তার পরিবার।

মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় শোক জানিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, পাক সেনা প্রধান কামার জাবেভ এবং সিন্ধ প্রদেশের গভর্নর।

করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে অন্যান্য দেশের মতো পাকিস্তানের উড়োজাহাজ চলাচল স্থগিত ছিলো। মাত্র কদিন আগে বাণিজ্যিক ফ্লাইটের ওপর থেকে সে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক