বিস্তারিত

ধর্ষণের ফলেই মাস্টার মাইন্ড ছাত্রী আনুশকার মৃত্যু

ছবি : সংগ্রহকৃত

বন্ধুর বাড়িতে গিয়ে মৃত মাস্টার মাইন্ড ছাত্রীর ময়নাতদন্তে ধর্ষণের আলামত মিলেছে। শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) বিকেলে তার ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ এর ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। এর ফলে গোপানাঙ্গে ও পায়ু পথে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণেই তার মৃত্যু হয়েছে।
এ ছাড়াও ডিএনএ প্রোফাইলিং এর জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মৃত্যুর পূর্বে চেতনা নাশক কিছু খাওয়ানো হয়েছে কিনা, তার জন্য প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করে ক্যামিক্যাল পরীক্ষায় পাঠানো হয়েছে। এসব রিপোর্ট পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বলা যাবে। তবে তার শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গতকাল রাতে রাজধানীর কলাবাগানে ডলফিন রোডে মাস্টার মাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলের শিক্ষার্থী আনুশকা নূর আমিনকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার ইফতেখার ফারদিন দিহান আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় তার সহপাঠীসহ চারজনকে আটক করেছে কলাবাগান থানা পুলিশ।

জবানবন্দিতে দিহান জানিয়েছেন, পারস্পরিক সম্মতিতেই শারীরিক সম্পর্ক হয়। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয় আনুশকার। তাকে আনোয়ার খান মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যায় দিহান। সেখানে ভর্তির আগে আনুশকাকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

সংবাদের ধরন : বাংলাদেশ নিউজ : নিউজ ডেস্ক