বিস্তারিত

ট্রাম্পের মিডিয়া প্রধান ‘হোপ হিকস’ পদত্যাগ করেছেন

ছবি : সংগ্রহকৃত

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সবচেয়ে বিশ্বস্ত সহযোগী ও হোয়াইট হাউসের যোগাযোগ (মিডিয়া) বিষয়ক পরিচালক হোপ হিকস পদত্যাগ করেছেন।

তিনি ট্রাম্পের নির্বাচনকালীন প্রেস সচিব পদে দায়িত্ব পালনের পর হোয়াইট হাউসের কৌশলগত যোগাযোগ বিষয়ক পরিচালক পদেও দায়িত্ব পালন করেন। তাকে ‘হোপস্টার’ নামে ডাকতেন ট্রাম্প।

দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর প্রেক্ষিতে হিকস বলেন, হোয়াইট হাউজ থেকে যা কিছু পাওয়ার, সবই তার পাওয়া হয়ে গেছে।

নির্বাচনী প্রচারের সময় ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করা হোপ হিকসকে হোয়াইট হাউজের যোগাযোগ পরিচালকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল গত বছরের সেপ্টেম্বরেই।

ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর হিকস  চতুর্থ ব্যক্তি হিসেবে এই পদে নিয়োগ পেয়েছিলেন। ২০১৫ সাল থেকেই ট্রাম্পের সঙ্গে কাজ করে আসছিলেন ২৯ বছর বয়সী সাবেক এই মডেল।

তবে হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডারস বলেন,  হিকস কখন প্রশাসন থেকে বিদায় নেবেন সেটি এখনো পরিষ্কার নয়।

এর আগে, মঙ্গলবারই হাউজ ইন্টিলেজেন্স কমিটির কাছে তিনি সাক্ষ্য দিয়েছেন এবং খবর পাওয়া যাচ্ছে যে সেখানে তিনি কখনো কখনো ট্রাম্পের পক্ষে নির্দোষ মিথ্যা বলার কথা স্বীকার করেছেন। তবে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ নিয়ে তদন্তে কোনো অসত্য বলার কথা প্রত্যাখ্যান করেছেন।

রাশিয়ার সঙ্গে ট্রাম্প শিবিরের সম্পর্ক বিষয়ে এই তদন্তে হোপ হিকস একজন গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী হতে যাচ্ছেন বলে মনে করা হয়।

২০১৪ সালে ট্রাম্প অর্গানাইজেশনে যোগ দেন হিকস। এর পরের বছরই ডোনাল্ড ট্রাম্প তাকে নির্বাচনী প্রচারণা দলে যুক্ত করেন, যদিও তার রাজনৈতিক কোনো অভিজ্ঞতা ছিল না। তবে কিছুদিন আগে গৃহ নির্যাতনের অভিযোগে পদত্যাগ করা হোয়াইট হাউজ কর্মী রব পোর্টারের ঘটনায় হিকসের  নাম আসে। বলা হয়, সে সময় হিকস রব পোর্টারের সঙ্গে প্রেম করছিলেন।

পোর্টারের পক্ষে সাফাই গেয়ে একটি প্রাথমিক স্টেটমেন্টও তৈরি করেছিলেন হিকস, যা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অসন্তুষ্ট করে তুলেছিল বলে জানা গেছে।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক