বিস্তারিত

গার্মেন্টস মালিকদের এক সিদ্ধান্তে, সব কিছুই যেন ব্যর্থ

ছবি : সংগ্রহকৃত

করোনাভাইরাস এমন একটি সংক্রামক ভাইরাস যা এর আগে কখনো মানুষের মধ্যে ছড়ায়নি। সারা এরই মধ্যে ১৮০টির বেশি দেশে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস, বিশ্বব্যাপী প্রাণহানি হয়েছে ৪৭ হাজারের বেশি মানুষের। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে বিশ্ব ব্যাপী আক্রান্তের সংখ্যা দিন কয়েকের মধ্যে দশ লাখে পৌঁছবে বলে তাদের অনুমান।

দেশে অঘোষিত লকডাউন চলছে। মারা যাচ্ছে মানুষ। সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ। গণপরিবহনের চাকা ঘুরছে না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাজ করে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

কিন্তু গার্মেন্টস মালিকদের বিস্ময়কর এক সিদ্ধান্তে সব কিছুই যেন ব্যর্থ হতে চলেছে। শুক্রবার দিনের শেষ বেলাতেই খবর, মানুষকে ঘরে থাকতে বলে তাদেরকে বলা হয়েছে, কাজে যোগ দিতে। বাধ্য হয়েই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে, অন্যদের ঝুঁকিতে ফেলে তারা ফিরছেন। তারা বলছেন, চাকরি বাঁচাতে তাদের সামনে কোনো বিকল্প নেই।

ময়মনসিংহ থেকে পায়ে হেঁটে পোশাক শ্রমিকরা আসছেন ঢাকার দিকে। আজ গণপরিবহন বন্ধ। যে যেভাবে পারছেন ঢাকার দিকে ছুটছেন। কেউ হেঁটে, কেউবা ট্রাকে, কেউ পিকআপে। কিন্তু পোশাক শ্রমিকদের মনে কোনো আনন্দ নেই। মুখে হাসি নেই।

পোশাক মালিকরা অবশ্য সমাজে এবং রাষ্ট্রে অত্যন্ত প্রভাবশালী অবস্থানে রয়েছেন। সর্বত্র রয়েছে তাদের অংশিদারিত্ব।

অনেকে আশা করছিলেন, করোনা ভাইরাস শুধু নিষ্ঠুরতাই দেখাবে না, মানুষের বিবেকও জাগ্রত করবে। একে অন্যের প্রতি আমরা সংবেদনশীল হবো, মানুষ মানুষের জন্য সেই বোধ ফের ফিরে আসবে। কিন্তু তা আর সম্ভবত, হওয়ার নয়। আমাদের বিত্তবান গার্মেন্টস মালিকরা সেটাই প্রমাণ করলেন।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক