বিস্তারিত

কীভাবে তাজা থাকা সম্ভব সারাদিন!

ছবি : সংগ্রহকৃত

আশেপাশের এমন অনেক মানুষই আছে যাদের এনার্জি দেখলে অবাক না হয়ে পারা যায় না। ভাবেন, কীভাবে এত তাজা থাকা সম্ভব সারাদিন! আর আপনি ক্লান্ত হতে হতেই ক্লান্ত হয়ে গেছেন।

কিছু অভ্যাস গড়ে তুললেই সবসময়ে উদ্যমী থাকা সম্ভব। উদ্যমী মানুষদের এসব অভ্যাস মেনে চললে ক্লান্তি দূর হবে আপনারও। জেনে নিন অভ্যাসগুলো সম্পর্কে।

পেট ভরে নাস্তা করুন: যদি সকালের নাস্তা এড়িয়ে গিয়ে থাকেন কিংবা পর্যাপ্ত পরিমাণে না খেয়ে থাকেন তাহলে ক্লান্তি ভর করবে। এছাড়াও অতিরিক্ত চিনি যুক্ত খাবার কিংবা প্রক্রিয়াজাত করা খাবার খেলেও ক্লান্তি লাগে। সকালের নাস্তায় হোল গ্রেইন যুক্ত খাবার, প্রোটিন, সবজি, ফল ইত্যাদি থাকা উচিত। এতে রক্তের চিনির পরিমাণ এবং রক্তচাপ দুটোই স্বাভাবিক থাকবে।

শারীরিক এবং মানসিক ব্যায়াম: ক্লান্তি দূর করতে প্রতিদিন শারীরিক এবং মানসিক ব্যায়াম করুন। হাঁটা, দৌড়ানো কিংবা সাতার হতে পারে আদর্শ ব্যায়াম। এছাড়াও জিমে কিছুটা সময় ব্যয় করতে পারেন সকালে। আর মানসিক ব্যায়ামের জন্য বেছে নিন ছবি আঁকা, লেখালেখি, পিয়ানো বাজানো কিংবা যে কোনো শখের কাজ বেছে নিন।

সামাজিক দক্ষতা বাড়িয়ে তুলুন: সবসময় উদ্যমী থাকতে চাইলে সামাজিক দক্ষতা বাড়াতে হবে। আপনি কীভাবে অন্যদের সঙ্গে কথা বলছেন কিংবা মিশছেন তার উপর আপনার উদ্যমী থাকা না থাকা নির্ভর করবে। পাশের মানুষটির সঙ্গে কিছুক্ষণ জমিয়ে আড্ডা দিলে মন ভালো থাকবে এবং কর্মক্ষেত্রে ক্লান্তি কমবে।

প্রচুর পানি পান: শরীরের পানির অভাব পূরণ না হলেও ক্লান্তি লাগে। তাই উদ্যমী থাকতে চাইলে প্রচুর পানি পান করা উচিত। ইউকে’র একটি গবেষণায় দেখা গেছে যারা পর্যাপ্ত পানি পান করেন না তাদের অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার প্রবণতাও বেশি থাকে। ফলে সঠিক পুষ্টির অভাবে শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে।

ডিভাইস বন্ধ করে ঘুম: একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের প্রতিদিন গড়ে সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুম প্রয়োজন। এর কম ঘুম হলেই ক্লান্তি লাগে। অনেকেই স্মার্ট ফোন চালানোর নেশায় ঘুমাতে দেরী করেন। ফলে পরের দিন কর্ম স্পৃহা কমে যায় এবং ক্লান্তি অনুভূত হয়। তাই এনার্জেটিক থাকতে চাইলে স্মার্ট ফোন, টিভি কিংবা অন্য যে কোন ডিভাইসের আসক্তি বাদ দিয়ে পরিমিত ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

সংবাদের ধরন : জীবন যাপন নিউজ : নিউজ ডেস্ক