বিস্তারিত

করোনাভাইরাস পুরুষ নাকি স্ত্রী!

ছবি : সংগ্রহকৃত

করোনাভাইরাসের লিঙ্গ নির্ধারণ। কোভিড-১৯ আসলে পুরুষবাচক নাকি স্ত্রীবাচক! করোনার আগে ‘লো’ বসবে, নাকি ‘লা’! তাই নিয়ে দড়ি টানাটানি চলছেই। অন্য ভাষা হলে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। কারণ বাংলাসহ ভাষাতেই নিউট্রাল জেন্ডার রয়েছে।

তবে ফরাসী ভাষার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা আলাদা। জেন্টার নিউট্রাল শব্দ হাতে গোণা। শেষমেশ ফরাসী ভাষার দেখাশোনা করা প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে করোনা আসলে স্ত্রীবাচক শব্দ। তাই কোভিড শব্দের আগে ফরাসীরা এবার থেকে লা যুক্ত করবে।

ফরাসী ভাষায় স্ত্রী বাচক শব্দের আগে লা বসে। পুরুষ বাচক শব্দের আগে লো এবং বহুবচনের ক্ষেত্রে লে। তবে এর আগে ফরাসীদের একাংশ বলছিল, কোভিড মাসকুলিন শব্দ। তাই পুরুষবাচক শব্দ হিসাবে এতদিন অনেকেই কোভিড শব্দের আগে লো বসাতেন।

কিন্তু একাডেমি ফ্রঁসেজ জানিয়েছে আসলে কোভিড শব্দটি স্ত্রীবাচক। একাডেমি ফ্রঁসেজ হচ্ছে ফরাসি ভাষার রক্ষক সংস্থা। ফরাসী ভাষায় যাতে ইংরেজি বা অন্য কোনও ভাষার আধিপত্য ও প্রভাব না বাড়ে তারা সেটাই দেখাশোনা করে। তারা এই সংকটের সময়েও কোভিড এর লিঙ্গ নির্ধারণ নিয়ে ব্যস্ত হয়েছেন।

সম্প্রতি ফ্রান্সে একটি নারীবাদী নিবন্ধে লেখা হয়, ‘লা কোভিড-১৯’। এরপরই চারদিকে প্রতিবাদ শুরু হয়, কোভিড ‘লা’ নয়, এর আগে ‘লে’ বলতে হবে।

ফরাসি ভাষায় ‘লে’ এবং ‘লা’ হলো ইংরেজি দ্যা-এর মতো আর্টিকেল। তবে ইংরেজি আর্টিকেল ‘দ্যা’ লিঙ্গ নিরপেক্ষ হলেও ফরাসি আর্টিকেলটি ‘লে’ আর ‘লা’ নামে ছেলে-মেয়েতে বিভক্ত।

করোনাভাইরাস জনিত অসুখের নাম হিসেবে বিশ্বজুড়ে কোভিড শব্দটি ব্যবহৃত হচ্ছে। ফরাসি ভাষায় তাদের একাডেমির নিয়মানুসারে, কোভিডের নাম ‘মালাদি প্রোভোকি পার লে করোনা ভাইরাস’। ইংরেজিতে যার অর্থ ‘দ্যা ডিজিজ কজড বাই দ্যা করোনাভাইরাস’। উচ্চারণ অনুসারে ‘মালাদি’ নারীবাচক শব্দ, সুতরাং এর আগে নারীবাচক আর্টিকেল ‘লা’-ই বসার কথা। তাই একাডেমির নিয়মানুসারে, কোভিড-১৯ একটি নারীবাচক শব্দ।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক