বিস্তারিত

এবার বিস্ফোরকে মুখ উড়ল গর্ভবতী গোরুর

ছবি : সংগ্রহকৃত

ন্যক্কারজনক! আবারও নির্মম ভাবে পশু অত্যাচারে বেআব্রু এই দেশ। কেরালায় গর্ভবতী হাতিকে বাজিতে মোড়া আনারস খাওয়ানোর কয়েকদিন ঘুরতে না ঘুরতেই, আবার একই কাণ্ডের পুনরাবৃত্তি। এবার হিমাচল প্রদেশে গোরুর মুখে বিস্ফোরক ঠাসা আটার ডেলা ভরে দেওয়া হল। মুখের ভয়ংকর অবস্থায় সেই গোরুর একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভাইরাল হয়েছে।

অপরাধ সেই একই। স্থান, কাল, পাত্র বদলে গেল কেবল। জানা গিয়েছে, ঘটনাটি হিমাচলের বিলাসপুর জেলায় ঘটেছে। ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, গোরুটির মালিক হতভাগা সেই গোরুর ঝলসে যাওয়া মুখটির দিকে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছেন। ওই গোরুটির মালিকের অভিযোগ, প্রতিবেশীরাই এমন নির্মম ভাবে তাঁর পোষ্যকে বিস্ফোরক খাইয়েছে। পাশাপাশিই তিনি আরও জানিয়েছেন যে, ইতিমধ্যেই সেই পড়শি পলাতক।

পুলিশের তরফে মামলা রুজু করা হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় মানুষ ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন। হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের দ্রুত পাকড়াও করার নির্দেশ দিয়েছেন। তাঁর কথায়, “এমনতর অমানবিক, ঘৃণ্য কাণ্ড কখনই বরদাস্ত করা হবে না। দোষীরা পালিয়ে গিয়ে পার পাবে না। পুলিশকে যত দ্রুত সম্ভব কালপ্রিটদের গ্রেফতার করার নির্দেশ দিয়েছি।”

গত ২৭ মে, কেরালার মলপ্পুরমে একটি অন্তঃসত্ত্বা হাতিকে খুনের ঘটনায় এখন দেশ তোলপাড়। একদল অবিবেচক মানুষের চরম নিষ্ঠুরতার মাসুল দিতে হয়েছে নিরীহ একটি অন্তঃসত্ত্বা হাতিকে। ফলের ভিতর বাজি পুড়ে খাইয়ে দেওয়া হয়েছিল হাতিটিকে। মুখের ভিতর সেই বাজি ফাটার পর অশেষ কষ্ট পেতে পেতে মারা যায় হাতিটি। মোহন কৃষ্ণন নামে বনবিভাগের এক অফিসার হাতিটির ছবি-সহ ঘটনার কথা সম্প্রতি মালয়লামে লিখে শেয়ার করেছেন ফেসবুকে। বিজয়ন অবশ্য বলেছেন, দোষীদের গ্রেপ্তার করে কঠোরতম সাজার ব্যবস্থা করা হবে। একটি সংস্থার পক্ষ থেকে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে দোষীদের মাথার দাম হিসেবে।

সেই ঘটনার এক সপ্তাহেরও বেশি সময় পেরিয়ে যাওয়ার পর শুক্রবারই একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার কেরালার বনমন্ত্রী কে রাজু জানিয়েছিলেন, ‘ইতিমধ্যেই একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই মামলায় আরও অনেকে অভিযুক্ত। তাঁদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

সংবাদের ধরন : অপরাধ নিউজ : নিউজ ডেস্ক