বিস্তারিত

আলকায়দার হুমকি, জবাবের ক্ষমতা রয়েছে ভারতীয় সেনার

ছবি : সংগ্রহকৃত

জম্মু-কাশ্মীরে ভারতীয় সেনার বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধের ঘোষণা দিল জঙ্গি সংগঠন আল কায়দা। এক ভিডিও বার্তায় আল কায়দা প্রধান এ জিহাদের ডাক দেন।

সংগঠনের তরফে সম্প্রতি একটি ভিডিয়ো প্রকাশ করা হয়েছে। তাতে ভারতীয় সেনা এবং উপত্যকার সরকারের উপর জঙ্গিদের আপসহীন আঘাত হানার নির্দেশে দিয়েছে আল কায়দা প্রধান আয়মান আল-জওয়াহিরি।

বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে বিদেশ মুখপাত্র রবিশ কুমার বলেন, ‘এমন হুমকি আমরা প্রায়ই শুনে থাকি।’

আমার মনে হয় না, এমন হুমকিকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত। রাষ্ট্রপুঞ্জের দ্বারা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী ঘোষিত আল কায়দার নেতার জানা উচিত যে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সব ধরনের হুমকির জবাবের ক্ষমতা রয়েছে।

বুধবার আল কায়দার তরফে প্রকাশিত ভিডিয়োতে ভারত সরকার ও সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ‘জিহাদ’ ঘোষণা করেন জঙ্গি গোষ্ঠীর বর্তমান নেতা আল জওয়াহিরি।

সাদা পোশাক পরে, ডান দিকে আগ্নেয়াস্ত্র এবং বাঁ দিকে কোরান নিয়ে ‘ডোন্ট ফরগেট কাশ্মীর’ নামের ভিডিয়োটিতে কথা বলতে শুরু করে জওয়াহিরি। তাতে সে বলে, আমার মতে এই মুহূর্তে ভারতীয় সেনাবাহিনী এবং রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আপসহীন আঘাতকেই প্রাধান্য দেওয়া উচিত কাশ্মীরের মুজাহিদদের। ভেঙে গুঁড়িয়ে দিতে হবে অর্থ ব্যবস্থাকে, যাতে লোকবল এবং সরঞ্জাম, সব ক্ষেত্রেই মুখ থুবড়ে পড়ে ভারত।

জওয়াহিরি আরও বলে, কাশ্মীরের লড়াই কোনও আলাদা লড়াই নয়, বরং ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে গোটা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায়ের জিহাদ। সর্বত্র এই বার্তা পৌঁছনো উচিত। যে কাফেররা মুসলিম দেশগুলিকে দখল করে রেখেছে, যত দিন পর্যন্ত তাদের তাড়ানো যাচ্ছে, তত দিন কাশ্মীর, ফিলিপিন্স, চেচনিয়া, মধ্য এশিয়া, সিরিয়া, আরব উপমহাদেশ, সোমালিয়া, ইসলামিক মাঘরেব (উত্তর অফ্রিকার মুসলিম দেশগুলি) এবং তুর্কেস্তানে জিহাদকে সমর্থন করা বিশ্বের সমস্ত মুসলিমের নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় আসার পর থেকেই কাশ্মীর নিয়ে কড়া অবস্থান নিয়েছে মোদী সরকার। সন্ত্রাস ইস্যুতে কড়া হাতে মোকাবিলার বার্তা দিয়েছেন নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। উপত্যকার বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদের বাড়িতে হানায় সেনার পাশাপাশি দেখা যাচ্ছে ED-র মতো আর্থিক দুর্নীতির তদন্তের সঙ্গে যুক্ত সংস্থাকেও।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক