বিস্তারিত

আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, রায় মেনে নিতে হবে

ছবি : সংগ্রহকৃত

রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের করা আপিল খারিজ করে দিয়ে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ড বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। আজ সোমবার সকালে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ রিভিউ খারিজ করে এ রায় দেন।

রায় দেওয়ার পর পরই আদালত প্রাঙ্গণে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন গণমাধ্যমের কাছে প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আপিল বিভাগে আমরা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর মুক্তি চেয়ে আবেদন করেছিলাম। প্রমাণ-দলিলাদি দিয়ে বলেছিলাম, ঘটনার সময় তিনি পিরোজপুরে ছিলেন না। এই রায়ে আপিল বিভাগের এক বিচারপতি তাঁকে খালাস দিয়েছিলেন। একাত্তরে নিহত পিরোজপুরের বিশা বালি হত্যার সাক্ষী সুখরঞ্জন বালি ভিডিও সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, তাঁর ভাইকে হত্যায় দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী জড়িত ছিলেন না। এর পর তাঁকে তুলে নিয়ে ভারতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এসব বিষয় আমরা আদালতে উপস্থাপন করেছি।

আইনজীবী বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ যে রিভিউ করেছে, তা সঠিক হয়নি। তামাদি আইন অনুযায়ী, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে রিভিউ আবেদন করতে পারেনি রাষ্ট্রপক্ষ। ফলে তাদের রিভিউ বাতিলের আবেদন করেছিলাম। আপিল বিভাগ দুটি রিভিউ শুনেছেন। শুনানি শেষে তা খারিজ করে দিয়েছেন। এর ফলে দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ড বহাল থাকল।

এ সময় খন্দকার মাহবুব হোসেন আরো বলেন, আমি সুপ্রিম কোর্টের একজন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। এ রায় আমাদের মেনে নিতে হবে।

তিনি বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কারো আপিল বিভাগে এসে সাজা কমেনি। দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর সাজা কমেছে। তাঁকে মৃত্যুদণ্ডের হাত থেকে বাঁচাতে পরেছি, এতেই খুশি।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক