বিস্তারিত

আবারও অঙ্গরাজ্য ভিত্তিক লকডাউন যুক্তরাষ্ট্রে

ছবি : সংগ্রহকৃত

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক, নিউজার্সি ও কানেটিকাট অঙ্গরাজ্যে নতুন কোয়ারেন্টিন চালু করা হয়েছে। যেসব অঙ্গরাজ্যে বাড়ছে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ, সেখান থেকে নিউইয়র্ক, নিউজার্সি ও কানেটিকাটে ঢোকার পর ১৪ দিনের সেলফ আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও পশ্চিমের কিছু অঞ্চলে সংক্রমণ বাড়ছে।

নিউজার্সির গভর্নর নিল মার্ফি বলেন, এ তিনটি (নিউইয়র্ক, নিউজার্সি ও কানেটিকাট) অঙ্গরাজ্যের মানুষ নারকীয় অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে গেছে। তারা আর সে অবস্থায় যেতে চায় না।

এরই মধ্যে ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনের একটি অনুমান বলছে, আগামী অক্টোবর নাগাদ যুক্তরাষ্ট্রে এক লাখ ৮০ হাজার লোক মারা যেতে পারে। আর যদি যুক্তরাষ্ট্রের ৯৫ শতাংশ মানুষ মাস্ক পরে, তাহলে মৃতের সংখ্যা হতে পারে এক লাখ ৪৬ হাজার।

এর আগে গত মঙ্গলবার মার্কিন সরকারের জনস্বাস্থ্য বিষয়ক প্রধান রবার্ট রেডফিল্ড কংগ্রেসে বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ রুখতে আমাদের যা যা করা সম্ভব ছিল, আমরা করেছি। কিন্তু এই একটা ভাইরাস আমাদের মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছে।’

এ ছাড়া মার্কিন শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা অ্যান্টনি ফসি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে যেভাবে সংক্রমণ বাড়ছে, তা উদ্বেগজনক।

যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত ২৩ লাখের মতো কোভিড-১৯ রোগী পাওয়া গেছে এবং এক লাখ ২১ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় মারা গেছে।

এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বে মোট করোনায় আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা ৯৫ লাখ ৩২ হাজারের বেশি। মোট মৃত্যু হয়েছে চার লাখ ৮৫ হাজারের বেশি মানুষের। করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে ৫১ লাখ ৭৯ হাজারের বেশি মানুষ, আর চিকিত্‍‌সাধীন ৩৮ লাখ ৬৭ হাজারের বেশি।

সংবাদের ধরন : আন্তর্জাতিক নিউজ : নিউজ ডেস্ক