বিস্তারিত

আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

ছবি : সংগ্রহকৃত

আজ ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে দখলদার পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তার দোসর রাজাকার আল-বদর, আল-শামস মিলিতভাবে পরিকল্পনা করে বাংলার শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। বুদ্ধিজীবীদের হত্যার ঠিক দুই দিন পর ১৬ ডিসেম্বর জেনারেল নিয়াজির নেতৃত্বাধীন বর্বর পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করে এবং স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে।

দিবসটি উপলক্ষে জাতীয়ভাবে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

তবে এবার করোনা আবহের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই বুদ্ধিজীবী দিবসের কর্মসূচি পালিত হবে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে জাতীয় ও কালো পতাকা অর্ধনমিতকরণ, মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে ও রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে, বঙ্গবন্ধু ভবন ও দেশব্যাপী সংগঠনের কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন এবং জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ। সকাল ৯টায় মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন।

সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু ভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে এবং সকাল ১০টায় রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ।

মেজর জেনারেল রাওফরমান আলীর শীতল পরিকল্পনায়, বাসা থেকে ধরে নিয়ে একে একে হত্যা করা হয় সূর্য সন্তানদের। রায়েরবাজার, মিরপুরসহ সারাদেশে পৃথিবীর নৃশংসতম বধ্যভূমিতে পরিণত করেন ঘাতকরা।

আত্মসমর্পণের আগে, মেরুদণ্ডহীন,কাপুরুষ এই নরপশুরা শেষ কামড় দিয়েছে বিষধর সাপের মত। বাঙালি জাতির উত্থানে প্রতিহিংসা আর নির্মম আক্রোশে এই হত্যা চালানো হয়। জেনারেল ফরমান আলী তার ডায়রিতে লিখেছিলেন, বাংলার মাটি রক্তে লাল করে দেবেন তিনি। তা তিনি দিয়েছিলেনও বটে, তারপরেও বুদ্ধিজীবী হত্যার দুইদিনের মাথায় স্বাধীন বাংলার লাল সূর্য দেখেছে বাংলার মানুষ।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক