বিস্তারিত

আজ বিশ্ব মা দিবস

ছবি : সংগ্রহকৃত

মা দিবস বা মাতৃ দিবস হল একটি সম্মান প্রদর্শন জনক অনুষ্ঠান যা মায়ের সন্মানে এবং মাতৃত্ব, মাতৃক ঋণপত্র, এবং সমাজে মায়েদের প্রভাবের জন্য উদযাপন করা হয়। এটি বিশ্বের অনেক অঞ্চলে বিভিন্ন দিনে, সাধারণত মার্চ, এপ্রিল বা মে উদযাপন করা হয়।

আজ মে মাসের দ্বিতীয় রোববার, বিশ্ব মা দিবস। প্রতি বছর এই দিনটি আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয় মায়ের মর্যাদার কথা। প্রতিটি সন্তানের মধ্যে কাজ করে মাকে ভালোবাসার ও তার কাছে ঋণের কথা ভেবে উদ্বেল হওয়ার বাড়তি প্রেরণা। দিনটিতে তারা অনেকেই মাকে কিছু না কিছু উপহার দেয়ার চেষ্টা করেন। ছুটে গিয়ে মায়ের আঁচলতলে আশ্রয় নেন। কেউবা দূরে থাকা মায়ের ছোঁয়া পেতে দ্বারস্থ হন টেলিফোনের।

প্রাচীন গ্রিসে বিশ্ব মা দিবসের পালন করা হলেও আধুনিককালে এর প্রবর্তন করেন এক মার্কিন নারী। ১৯০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের আনা জারভিস নামের নারী মারা গেলে তার মেয়ে আনা মারিয়া রিভস জারভিস মায়ের কাজকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য সচেষ্ট হন। ওই বছর তিনি তার সান ডে স্কুলে প্রথম এ দিনটি মাতৃদিবস হিসেবে পালন করেন। ১৯০৭ সালের এক রোববার আনা মারিয়া স্কুলের বক্তব্যে মায়ের জন্য একটি দিবসের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করেন।

১৯১৪ সালের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেস মে মাসের দ্বিতীয় রোববারকে ‘মা’ দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এভাবেই শুরু হয় মা দিবসের যাত্রা। এরই ধারাবাহিকতায় আমেরিকার পাশাপাশি মা দিবস এখন বাংলাদেশসহ অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চীন, রাশিয়া ও জার্মানসহ শতাধিক দেশে মর্যাদার সঙ্গে দিবসটি পালিত হচ্ছে। যদিও করোনার কারণে এবার দিবসটিতে কোন আনুষ্ঠানিকতা দেখা যাবেনা। তাই বলে ঘরে ঘরে মায়ের ভালবাসা কুড়াতে কার্পণ্য করবে না, কোন সুসন্তান।

আসলে ‘মা’ এমন একটি শব্দ যার মূল্য আজ পর্যন্ত কেউ পরিশোধ করতে পারেনি। আমি সর্বদা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি ‘মা’ শব্দের ওজন এতো বেশি যে কেবল ব্যক্তি নয়, এর ভার এই জমিন কিংবা আকাশও বহন করতে পারেনি। তাইতো তার পদতলেই আমাদের স্বর্গ। ‘মা’ কখনোই হেলাফেলার কিছু নয়। ‘মা’ তো ‘মা’-ই।

জীবন চলার পথে এতটুকু বুঝেছি, জগৎ সংসারের শত দুঃখ-কষ্টের মাঝে যে মানুষটির একটু সান্ত্বনা আর স্নেহ-ভালবাসা আমার সমস্ত বেদনা দূর করে দেয়, সেই মানুষটিই হলো আমার ‘মা’। মায়ের চেয়ে আপনজন পৃথিবীতে আর কেউ নেই। মা-ই সন্তানের একমাত্র নিঃস্বার্থ বন্ধু। দুঃখে-কষ্টে, সংকটে-উত্থানে যে মানুষটি স্নেহের পরশ বুলিয়ে দেন, তিনি হচ্ছেন আমার সবচেয়ে আপনজন ‘মা’।

আমি প্রতিনিয়ত উপলদ্ধি করি, মা হচ্ছেন সন্তানের সুখ-দুঃখের অনন্ত সাথী। মা সন্তানের সুখে সুখী হন, আবার সন্তানের দুঃখে দুঃখী হন। নিজের সমস্ত স্বাদ-আহ্লাদ, আনন্দ-বেদনা বিলিয়ে দেন সন্তানের সুখ-শান্তির জন্য। তার হৃদয়ের প্রবাহমান প্রতিটি রক্ত কণিকায় রয়েছে সন্তানের জন্য ভালবাসা। মা তার সন্তানকে তিলে তিলে গড়ে তোলেন। সন্তানকে ঘিরেই মায়ের স্বপ্নের ডাল-পালা বিস্তার করতে থাকে। পৃথিবীতে একমাত্র মায়ের ভালবাসা ও দানই নিস্বার্থ ও বিনিময়হীন। মায়ের একনিষ্ঠ প্রচেষ্টায় আমরা দেখতে পাই সুন্দর পৃথিবীর এই বিচিত্র সৌন্দর্যের সমারোহ। মায়ের কাছেই আমরা গ্রহণ করি জীবনের প্রথম পাঠ।

‘মা দিবস’ সেই মমতাময়ী মায়ের জন্য। শুধুই তাদের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য। সবচেয়ে আপন মানুষটি মা-কে আরো বেশি ভালোবাসার জন্য। যদিও সন্তানের জন্য গর্ভধারিণীকে বিশেষভাবে ভালোবাসার কোনো বিশেষ দিন নেই। তারপরও কালক্রমে নানা সূত্রে মায়ের অপার মহিমা তুলে ধরারও একটি দিন মা দিবস।

সংবাদের ধরন : র্শীষ সংবাদ নিউজ : নিউজ ডেস্ক