বিস্তারিত

অভিনেত্রী তাপসীর পরিবারে শোকের ছায়া

ছবি : সংগ্রহকৃত

লকডাউনের মধ্যেই শোকের ছায়া বইছে অভিনেত্রী তাপসী পান্নুর পরিবারে। প্রিয়জনের মৃত্যুতে ভেঙে পড়লেন অভিনেত্রী তাপসী পান্নু। চলে গেলেন তাঁর ঠাকুমা। যাঁকে ‘বিজি’ বলতেন তাপসী। আর এই বিজি ছিলেন তাঁর খুবই কাছের মানুষ।

শনিবার নিজের ইনস্টাগ্রামে সেই খবর শেয়ার করে তাপসী লেখেন, “ওই প্রজন্মের শেষ মানুষ ছিলে তুমি। তোমার মৃত়্যুতে যে ফাঁকা জায়গা তৈরি হল তা কোনওদিন পূরণ হবার নয়। বিজি, ভালবাসি তোমাকে।”

তাপসী এই মুহূর্তে বোনের সঙ্গে মুম্বইয়ে রয়েছেন তাই বিজি-র সঙ্গে তাঁর শেষ দেখাও হয়নি। তাঁর পরিবার বর্তমানে পঞ্জাবে রয়েছে।

তাপসী পঞ্জাবি। তাই পঞ্জাবি রীতিতে ঠাকুরমার পারলৌকিক কাজকর্মের ছবিও শেয়ার করেছেন অভিনেত্রী। তবে কীভাবে মারা গেলেন, আর কবেই বা মারা গেলেন তাপসীর আদরের বিজি, সে ব্যাপারে ভক্তদের বিস্তারিত জানাননি অভিনেত্রী। তবে শোনা যাচ্ছে, বার্ধক্যজনিত অসুখেই মারা গিয়েছেন তাপসীর ঠাকুমা। তাপসীর সঙ্গে ঠাকুমার সম্পর্ক ছিল বেশ মধুর।

এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই শোকবার্তা জানিয়েছেন অভিষেক বচ্চন, পাভেল গুলাটি-সহ তাঁর সহ অভিনেতারাও।

তাপসী ১৯৮৭ সালের ১ আগস্ট ভারতের নতুন দিল্লির একটি শিখ পরিবারে জন্ম নেন। শাগুন পান্নু নামে তার একটি বোন রয়েছে। তিনি দিল্লির অশোক বিহারের মাতা জাই কৌর পাবলিক স্কুলে অধ্যয়ন করেন। এরপর নয়া দিল্লির গুরু টেগ বাহাদুর ইনিস্টিটিউট অব টেকনোলজি থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করার পর তিনি সফটওয়্যার প্রকৌশল হিসেবে কাজ শুরু করেন।

চ্যানেল ভি কর্তৃক আয়োজিত গেট গরর্জিয়াস প্রতিভা অনুষ্ঠানের অডিশনে নির্বাচিত হবার পর তিনি পেশাদার মডেল হিসেবে কাজ শুরু করেন, যা পরিণামে তাকে অভিনেত্রী হবার সুযোগ করে দেয়। তাপসী বিভিন্ন মুদ্রণ মাধ্যম এবং টেলিভিশন বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনে উপস্থিত হয়েছেন এবং ২০০৮ সালের ফেমিনা মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে “প্যান্টালুন ফেমিনা মিস ফ্রেস ফেস” ও “সাফি পেমনা মিস বিউটিফুল স্কিন”-সহ একাধিক খেতাব লাভ করেন।

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক