বিস্তারিত

‘অনুষ্কা শেট্টি’ অভিনয় আসার আগে কী করতেন!

ছবি : সংগ্রহকৃত

‘বাহুবলী’ দেখেননি এরকম দর্শক খুব কমই আছেন। আর ‘বাহুবলী’ দেখলে দেবসেনাকে তো নিশ্চই চেনেন। কিন্তু জানেন কি অভিনয় জগতে আসার আগে তিনি কী করতেন অনুষ্কা ‘দেবসেনা’ শেট্টি?

১৯৮১ সালের ৭ নভেম্বর, কর্নাটকের ম্যাঙ্গালোরে জন্ম অনুষ্কা শেট্টির। অনুষ্কার দুই ভাইয়ের এক জন গুণরঞ্জন শেট্টি যিনি ব্যবসায়ী। অন্য ভাই সাই রামেশ শেট্টি পেশায় চিকিত্সক।

অনুষ্কা কিন্তু প্রথম থেকেই ‘অনুষ্কা’ ছিলেন না। তাঁর নাম ছিল সুইটি শেট্টি। পরবর্তী কালে অভিনয় জগতে আসার পরে তাঁর নাম পরিবর্তিত হয়। অভিনেত্রীর ডাক নাম কিন্তু একটু অন্য রকম। তাঁর ডাক নাম ম্যাক।

অনুষ্কা মাউন্ট কার্মেল কলেজ থেকে কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশনে স্নাতক। নায়িকার হবি যোগব্যায়াম করা। একই সঙ্গে ঘুরতে, বই পড়তেও ভালবাসেন তিনি।

ফিল্মে আসার আগে তিনি যোগব্যায়ামের শিক্ষকও ছিলেন। ইউটিউবে তিনি বেশ কিছু যোগব্যায়ামের ভিডিও শেয়ার করেছেন।

তাঁর প্রিয় বই পাওলো কোয়েলহোর লেখা ‘দি আলকেমিস্ট’। বই পড়া ছাড়াও কবিতা এবং প্রকৃতি সম্বন্ধে নানা রকম লেখা সংগ্রহ করতে তিনি খুব ভালবাসেন।

চিকেনের যে কোনও পদই তাঁর খুব প্রিয়। আর কালো এবং সাদা রং তাঁর সবথেকে পছন্দের। তাঁর প্রথম তেলুগু সিনেমা পুরী জাগান্নদাস পরিচিত ‘সুপার’ মুক্তি পায় ২০০৫ সালে। ২০০৬ সালে মুক্তি পায় তাঁর প্রথম তামিল সিনেমা ‘রেন্দু’। ২০০৫ সালে প্রথম সিনেমা করলেও, তিনি সকলের কাছে পরিচিত হন ২০০৬ সালের ‘ভিক্রামারকুদু’র জন্য। এই সিনেমায় তিনি রবি তেজার বিপরীতে অভিনয় করেন। তিনি প্রচুর মালয়ালম, তামিল এবং তেলুগু সিনেমা করেছেন। ‘রুদ্রমা দেবী’, ‘অরুন্ধতী’, ‘সাইজ জিরো’, ‘বাহুবলি’… তালিকাটা দীর্ঘ।

‘সাইজ জিরো’ সিনেমার জন্য তিনি প্রায় ২০ কেজি ওজন বাড়িয়েছিলেন। লিড রোল তো বটেই, আইটেম নাম্বারেও মাত করেছেন অনুষ্কা। যেমন ২০০৬ সালে ‘স্তালিন’ সিনেমার আই ওয়ানা স্পাইডার ম্যান। ২০০৮ সালের কিং সিনেমার ‘নুভভু রেডি নেনু রেডি’
কেরিয়ারে একাধিক পুরস্কার জিতেছেন অনুষ্কা। শুধু ‘অরুন্ধতী’র জন্যই পেয়েছিলেন একাধিক পুরস্কার। সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কারও পান এই সিনেমার জন্য। ২০১১ সালে অনুষ্কা তামিলনাড়ু সরকারের তরফ থেকে কালাইমামানি পুরস্কার পেয়েছেন। এ ছাড়া টিএসআর লালিথা কালা পারিসনাথ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন।

তাঁর সবথেকে জনপ্রিয় সিনেমা হল ‘অরুন্ধতী’ এবং ‘বাহুবলী’ সিরিজ। দু’টি ছবিই অনেক ভাষায় রয়েছে।

তেলুগু সিনেমা জগতে তিনি সবথেকে বেশি পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেত্রী। মার্কিন বক্স অফিসে তিনি শ্রীদেবীর পরে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন।

বেশ কয়েক বছর পরিচালক কৃষের সঙ্গে সম্পর্কে ছিলেন অনুষ্কার। সে সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পর তাঁর সঙ্গে অভিনেতা প্রভাসের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন ছড়িয়েছে। তবে এ সব নিয়ে কোনও দিনই মুখ খোলেননি অনুষ্কা।

সংবাদের ধরন : বিনোদন নিউজ : নিউজ ডেস্ক